নাইকো দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য ৪ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত।

সোমবার পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডে পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে অবস্থিত ঢাকার ৯নং বিশেষ জজ শেখ হাফিজুর রহমান এ দিন ধার্য করেন।

আজ এ মামলার বিচারের জন্য কারাগারটির দোতালার কক্ষ থেকে খালেদা জিয়াকে হুইল চেয়ারে করে দুপুর ১২টা ২৬ মিনিটে আদালত কক্ষে আনা হয়। এরপর দুপুর সাড়ে ১২টায় এজলাসে বসেন বিচারক। এরপর খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের বৈধতা নিয়ে শুনানি শুরু করেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। মামলাটির অন্যতম আসামি তিনিও। তবে আংশিক শুনানি করে তিনি সময় চাইলে আদালত তা মঞ্জুর করেন। এরপর অপর আসামি শহিদুল হকের পক্ষে আরেক আইনজীবী আংশিক শুনানি করে সময়ের আবেদন করেন। আদালত আবেদন মঞ্জুর করে পরবর্তী শুনানির তারিখ নির্ধারণ করেন। এরপর দুপুর ১টা ৫৫ মিনিটে খালেদা জিয়াকে আবারও কারাকক্ষে ফেরত নিয়ে যাওয়া হয়।

মামলায় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল।

২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে খালেদা জিয়াসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে দুদকের সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ মাহবুবুল আলম তেজগাঁও থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমেদ, সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশাররফ হোসেন, তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সচিব খন্দকার শহীদুল ইসলাম, সাবেক সিনিয়র সহকারী সচিব সি এম ইউছুফ হোসাইন, বাপেক্সের সাবেক মহাব্যবস্থাপক মীর ময়নুল হক, বাপেক্সের সাবেক সচিব শফিউর রহমান, ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুন, বাগেরহাটের সাবেক সাংসদ এম এ এইচ সেলিম এবং নাইকোর দক্ষিণ এশিয়া-বিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট কাশেম শরীফ।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here