ইউরোপের কয়েকটি দেশ ভেনিজুয়েলায় আট দিনের মধ্যে নতুন নির্বাচন দেয়ার যে আল্টিমেটাম দিয়েছে তা সরাসরি প্রত্যাখ্যান করেছেন ল্যাতিন আমেরিকার দেশটির প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো।

তিনি সিএসএন তুর্ক’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, দেশের রাজনৈতিক সংকটে বিদেশিদের চাপ সহ্য করবে না ভেনিজুয়েলা।

ইউরোপের দেশ ফ্রান্স, স্পেন ও জার্মানি গতকাল আগামী আট দিনের মধ্যে নতুন নির্বাচন দেয়ার জন্য কারাকাসের ওপর  চাপ সৃষ্টি করে বলেছিল,এর ব্যত্যয় ঘটলে স্বঘোষিত অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট হুয়ান গুয়াইডোকে ভেনিজুয়েলার ‘বৈধ’ প্রেসিডেন্ট হিসেবে স্বীকৃতি দেবে তারা।

ভেনিজুয়েলার পররাষ্ট্রমন্ত্রী জর্জ অ্যারিজা ইউরোপের আল্টিমেটামকে ‘বালসুলভ’ বলে নাকচ করে দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, “একটি স্বাধীন-সার্বভৌম দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে এরকম আল্টিমেটাম দেয়ার অধিকার বিশ্বের কোনো দেশের নেই।”

গত মে মাসে লাতিন আমেরিকার দেশ ভেনিজুয়েলায় সাধারণ নির্বাচনে জয়লাভের মাধ্যমে দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন মাদুরো। চলতি মাসের শুরুতে শপথ নেন বামপন্থি এ রাজনীতিক। তবে বিরোধীরা প্রথম থেকেই কারচুপির অভিযোগ তুলে নতুন নির্বাচনের দাবি জানিয়ে আসছে। দেশের যখন এই অবস্থা তখন প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোকে ক্ষমতাচ্যুত করার চেষ্টা করছেন হুয়ান গুয়াইডো।

মাদুরোবিরোধী বিক্ষোভ তুঙ্গে ওঠার পর গত বুধবার নিজেকে অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করেন ৩৫ বছর বয়সী নেতা হুয়ান গাইডো। সঙ্গে সঙ্গে তাকে স্বীকৃতি দেয় যুক্তরাষ্ট্র,কানাডা ও দক্ষিণ আমেরিকার কিছু দেশ। এর বিরুদ্ধে অবস্থান নেয় রাশিয়া, চীন, ইরান ও তুরস্ক সহ আরো কিছু দেশ।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here