আমেরিকার গ্রিন পার্টির সাবেক প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জিল স্টেইন বলেছেন, ভেনিজুয়েলা ইস্যুতে মার্কিন সরকারের বর্তমান অবস্থান প্রকৃতপক্ষে গণতন্ত্রের জন্য নয় বরং তেল সম্পদের জন্য। তিনি আরো বলেছেন, লাতিন আমেরিকার দেশগুলো নিয়ে আমেরিকার নীতি কখনো গণতন্ত্রের জন্য পরিচালিত হয় নি।

জিল স্টেইন তার টুইটার অ্যাকাউন্টে বলেছেন, “গত ১০০ বছরের বেশি সময় ধরে আমেরিকা লাতিন আমেরিকায় ডানপন্থিদের অভ্যুত্থান ও উত্থান-পতনে সমর্থন দিয়ে এসেছে। এর মধ্যে একটি ঘটনাও গণতন্ত্রের জন্য ছিল না। এর সবগুলো পরিচালিত হয়েছে বিশ্বের এলিট শ্রেণিকে আরো ধনী করার জন্য। কিন্তু এবারও বিশ্বের অন্যতম তেলসমৃদ্ধ দেশ ভেনিজুয়েলার ঘটনাকে ভিন্নভাবে আমাদের বিশ্বাস করতে বাধ্য করা হবে।”

জিল স্টেইন টুইটারে এ পোস্ট দেয়ার পরপরই বহু মানুষ তার বক্তব্য সমর্থন করে মন্তব্য করেছেন। তাদের অনেকেই ভেনিজুয়েলার রাজনীতিতে মার্কিন হস্তক্ষেপের নিন্দা করেছেন।

গত মে মাসে অনুষ্ঠিত জাতীয় নির্বাচনে বিজয়ী হন ভেনিজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো। কিন্তু বিরোধীরা ব্যাপক কারচুপির অভিযোগ এনে নতুন নির্বাচন দাবি করছে। এরই ধারাবাহিকতায় গত বুধবার ভেনিজুয়েলার বিরোধীদলীয় নেতা হুয়ান গুয়াইডো নিজেকে প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করেন। এর পরপরই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তাকে স্বীকৃতি দেন। কিন্তু ইরান, রাশিয়া, চীন ও তুরস্কসহ বহু দেশ মাদুরোর প্রতি সমর্থন অব্যাহত রেখেছে। এ প্রেক্ষাপটে ভেনজিুয়েলার বিরুদ্ধে সামরিক আগ্রাসনের কথা বিবেচনা করছে আমেরিকা। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা ধারণা করছেন, ভেনিজুয়েলা ইস্যুতে বিশ্বে আবার প্রকাশ্য স্নায়ুযুদ্ধ দেখা দিতে পারে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here