দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে বিপিএলে একের বেশি সেঞ্চুরি হাঁকানোর কীর্তি গড়লেন এভিন লুইস। এরপর চতুর্থ বোলার হিসেবে এই ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিত্তিক ঘরোয়া টি-টুয়েন্টি প্রতিযোগিতায় হ্যাটট্রিক করলেন ওয়াহাব রিয়াজ। তাদের যুগলবন্দিতে পয়েন্ট তালিকার তলানির দল খুলনা টাইটান্সকে ৮০ রানে হারিয়ে কয়েক ঘণ্টার জন্য শীর্ষে উঠল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স।

খুলনার ভুলের শুরু অবশ্য একদম টসেই। চট্টগ্রামের অমন পাটা পিচেও মাহমুদউল্লাহকে দেখে গেছে ফিল্ডিং বেছে নিতে। এরপর যা হলো তা বড়ই বিব্রতকর তাদের জন্য। বোলাররা ছিলেন এলোমেলো, ফিল্ডাররা গা ছাড়া। এরমধ্যে পেশিতে টান পেয়েও দুর্বার ছিলেন লুইস। তাকে থামানো যায়নি, সইতে হয়েছে ইমরুল কায়েস, শামসুর রহমানদের পিটুনিও।

এদিন খুলনা তাদের প্রায় সব বোলারকেই  ওয়াইড ইয়র্কার করতে নির্দেশনা দিয়েছিল বোধহয়। কারণ তারা এমনটা করতে গিয়ে দিলেন ২১টি ওয়াইড। অর্থাৎ একটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে সাড়ে তিন ওভার কেবল ওয়াইডের কারণেই অতিরিক্ত করতে হয়েছে তাদের।

এরমধ্যে স্লটে বল ছিল অহরহ। চোট কাটিয়ে ফেরা এভিন লুইসের তাই তাণ্ডব চালাতে কোন অসুবিধাই হয়নি। শুরুতে মন্থর খেলতে থাকা তামিম ইকবাল ফেরার পর পরই আউট হন এনামুল হক বিজয়। কিন্তু ইমরুল নেমে সব ভুলিয়ে দেওয়ার মত ব্যাট চালাতে থাকেন। দারুণ সব চার হয়ে রানরেট আকাশে তোলার পর ২১ বলে ৩৯ করে এলবিডব্লিও হয়ে ইমরুল ফিরলেও সেই ঝড়ে ছেদ পড়েনি।

সময়ের সঙ্গে ডানা মেলতে থাকা লুইস গুনে গুনে মেরেছেন ১০ ছক্কা। সেঞ্চুরি পেরিয়েছেন ৪৭ বলে।  প্রথম ১০ ওভারে ৭৭ করা কুমিল্লা পরের ১০ ওভারে করে ১৬০ রান! তার বেশিরভাগ কৃতিত্ব লুইসের। তিনি আর আর আউট হননি। অপরাজি থেকেছেন ১০৯ রানে। শেষ দিকে নেমে তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে দলকে চূড়ায় তুলেন শামসুর।

এক ইনিংস শেষ হতেই ম্যাচের ভাগ্য আসলে অনেকটাই নির্ধারিত হয়ে গিয়েছিল।  সে ভাগ্য ফেরানোর কোন ইঙ্গিতই দিতে পারেনি খুলনা। রান তাড়ায় নেমে ব্র্যান্ডন টেইলর, কার্লোস ব্র্যাথওয়েট যা অল্প বিস্তর বিনোদন দিয়েছেন। কুমিল্লার কপালে ভাঁজ তৈরি করতে পারেননি, নিজেদের তৃপ্তি পাওয়ার মতও কিছু হয়নি তাদের। উল্টো শেষ তিন উইকেট নিয়ে হ্যাট্রটিক করে বসেন ওয়াহাব রিয়াজ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স: ২০ ওভারে ২৩৭/৫ (তামিম ২৫, লুইস ১০৯*, ইমরুল ৩৯, শামসুর ২৮*; মাহমুদউল্লাহ ২/৩২, ব্র্যাথওয়েট ২/৪২)।

খুলনা টাইটান্স: ১৮.৫ ওভারে ১৫৭ (টেলর ৫০, জুনায়েদ ২৭; ওয়াহাব ৩/১৪, আফ্রিদি ৩/২৭)।

ফল: কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ৮০ রানে জয়ী।

ম্যাচসেরা: ইভিন লুইস।

 

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here