নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচের একটি ওয়ানডে সিরিজের জন্য ঘোষিত ১৫ সদস্যের জাতীয় দলে ইমরুল কায়েস দলে না থাকার আক্ষেপ ব্যক্ত করেছেন।

তিনি জানান, “আমি নিজেও জানি না আমি কেনো দলে নেই, ভালো খেলার পর সিরিজগুলো কেনো খেলতে পারি না এ বিষয়ে আমি পরিষ্কার না।”

“জিনিসগুলো ক্লিয়ার হওয়া আমার জন্য ভালো। কারণ আমি নিজেও তাহলে সে অনুযায়ী অনুশীলন বা প্রস্তুতি নিতে পারি,” চট্টগ্রামে একটি সংবাদ সম্মেলনে বলেন ইমরুল কায়েস।

তিনি বলেন ১০ বছর ধরে এভাবেই খেলে আসছেন তিনি, “গত দশ বছর ধরে তো এভাবেই খেলে আসছি। আমি ওভাবেই মানসিকভাবে তৈরি থাকি। যখনই সুযোগ পাই জাতীয় দলে খেলার জন্য, ভালো করার চেষ্টা করি।”

প্রধান নির্বাচক মিহাজুল আবেদীন নান্নু অবশ্য দল ঘোষণার ক্ষেত্রে বলেছেন এখানে ফর্ম আর কন্ডিশন ভিন্ন।

“ফর্ম ও কন্ডিশন বিবেচনায় ওকে বাদ দেয়া হয়েছে, কিন্তু এখানে কাউকে উপেক্ষা করা হয়নি। ওয়ানডের জন্য যারা যাচ্ছে ওদের প্রস্তুতি কতটুকু এটা দেখতে হবে, এর সাথে দেখা হবে যারা যাবেনা তাদেরটাও পর্যবেক্ষণ করা হবে, এরপর আয়ারল্যান্ড ও বিশ্বকাপের দল বিবেচনা করা হবে,” মিনহাজুল আবেদীন নান্নু।

শেষ ১০টি ইনিংসে ইমরুল কায়েস মোট রান করেছেন ৪১৫। যার মধ্যে আছে দুটো সেঞ্চুরি, জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। দুটো অর্ধশতক আছে,একটি আফগানিস্তান ও একটি দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে। এছাড়া ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুটো ইনিংসে, ভারত, পাকিস্তান ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে একটি করে ইনিংসে ইমরুল দুই অঙ্কের রান পাননি।

২০১৮ সালে ইমরুল কায়েসের পারফরম্যান্স কেমন ছিল?

২০১৮ সালে বাংলাদেশের সেরা পাঁচ ব্যাটসম্যানের মধ্যে চার নম্বরে আছেন ইমরুল। খেলেছেন ৮টি ওয়ানডে ম্যাচ। তবে সেরা পাঁচের মধ্যে সর্বোচ্চ স্ট্রাইক রেট তার।

বাকিদের অবস্থা কেমন?

নাম                          ইনিংস      রান         গড়             স্ট্রাইক রেট

মুশফিকুর রহিম        ১৯        ৭৭০        ৫৫                 ৮২.৩৫

তামিম ইকবাল         ১২        ৬৮৪       ৮৫.৫০            ৭৬.৩৩

সাকিব আল হাসান    ১৩        ৪৯৭       ৩৮.২৩             ৮৩.৯৫

ইমরুল কায়েস           ৮        ৪৩৬       ৬২.২৮            ৯০.৪৫

মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ      ১৬        ৪১৯       ৩২.২৩            ৭৫.৩৫

নিউজিল্যান্ডের মাটিতে সর্বশেষ সিরিজের পরিসংখ্যান

নিউজিল্যান্ডের মাটিতে সর্বশেষ ওয়ানডে সিরিজে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ছিলেন ইমরুল কায়েস। সেই সিরিজে ইমরুল কায়েস ৩ ম্যাচ খেলে করেন ১১৯ রান, যেখানে তামিম ইকবাল ৩ ম্যাচ ব্যাট করে ১১৫ রান তোলেন। সাকিব আল হাসান ছিলেন তৃতীয়, ৩ ম্যাচে তার সংগ্রহ ছিল ৮৪ রান।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here