মানুষের চিন্তাধারাকে সরাসরি কথায় রূপান্তর করার পদ্ধতি বের হয়েছে। এ পদ্ধতি কেবল চিকিৎসা নয় বরং যোগাযোগের ক্ষেত্রেও বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নিউ ইয়র্কের কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নায়ু-প্রকৌশলী বা নিউরো-ইঞ্জিনিয়াররা এ পদ্ধতি বের করেছেন। এ জন্য তারা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা এআই’র সহায়তা নিতে হয়েছে। কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের মরটিমার বি. জুকেরম্যান মাইন্ড ব্রেইন বিহেভিয়ার ইন্সটিটিউটে এ গবেষণা চালানো হয়। গবেষণায় অংশগ্রহণকারী ব্যক্তির মস্তিষ্কের তৎপরতা পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে এবং এর ভিত্তিকে এআইকে অর্থবহ বাক্য তৈরির প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। এ সংক্রান্ত গবেষণা-পত্র প্রকাশ করেছে সায়েন্টিফিক জার্নাল।

গবেষকরা আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন যে রোগ বা আঘাতজনিত কারণে সে সব রোগীর বাক-সক্ষমতা বাধাগ্রস্ত হয়েছে এ গবেষণার প্রথম সুফল পাবেন তারা।

এ গবেষণা-পত্র তৈরির সঙ্গে জড়িত ড. নিমা মেসগারানি বলেন, যথাযথ প্রযুক্তির মাধ্যমে এ ধরণের রোগীদের চিন্তাধারাকে কথায় প্রকাশ করা যাবে এবং যে কোনো শ্রোতা সে কথা শুনে বুঝতে পারবেন। এ গবেষণায় ভোকোডার নামে পরিচিত কম্পিউটার অ্যালগরিদম ব্যবহার করা হয়েছে। কথা বলার জন্য কম্পিউটার এ অ্যালগরিদমের সহায়তায় নেয়।

অ্যামাজন ইকো এবং অ্যাপেল সিরি একই প্রযুক্তি ব্যবহার করে আমাদের প্রশ্নের জবাব দেয়।

এ গবেষণায় অন্যতম সহায়তাকারী ছিলেন লং আইল্যান্ডের নর্থওয়েল হেলথ নিউরোসায়েন্স ইন্সটিটিউটের নিউরোসার্জন ডা. অশেষ দিনেশ মেহতা। গবেষণা-পত্রের সহকারী লেখকও তিনি।

এ ক্ষেত্রে আগের যে কোনো গবেষণা থেকে কলাম্বিয়ার গবেষণা অনেক বেশি সফল হয়েছে। একে আরো উন্নত করার চেষ্টায় মেতে উঠেছেন গবেষকরা।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here