চিটাগংয়ের জহুর আহম্মেদ স্টেডিয়ামে ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে ১১ রানের জয় পেয়েছে চিটাগং ভাইকিংস। টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেন চিটাগং ভাইকিংস অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। ক্যামেরুন ডেলপোর্টের (৭১) ব্যাটে ভড় করে ২০ ওভার শেষে পাঁচ উইকেট ১৭৪ রান করে চিটাগং ভাইকিংস।

পরে ব্যাটিং করে ওপেনারদের ব্যার্থতায় ভুগতে হয়ে ঢাকা ডায়নামাইটসকে। অধিনায়ক  সাকিব আল হাসানের দলকে জয়ের আশা দেখালেও শেষ পর্যন্ত দলের জয় তুলে নিতে পারেননি। এই জয়ে পয়েন্ট তালিকার তৃতীয় স্থানে ধরে রাখল চিটাগং ভাইকিংস। আর ঢাকা ডায়নামাইটসের অবস্থান চতুর্থ স্থানে।

টানা হারের মধ্যে থাকা ঢাকা এই ম্যাচে নেমেছিল শঙ্কা মাথায় নিয়ে। চিটাগং ১৭৫ রানের শক্ত চ্যালেঞ্জ দিয়ে দেওয়ায় তুমুল লড়াইয়ের আভাস ছিল মাঝ বিরতিতেই।

সে লক্ষ্যে নেমে শুরুটা ভুলে যাওয়ার মতো হয় ঢাকার। ২৩ রানের মধ্যেই ধস নামে টপ অর্ডারে। ফিরে যান সুনিল নারাইন, রনি তালুকদার, মিজানুর রহমানরা।

সাকিবের সঙ্গে মাঝারি এক জুটির পর ফেরেন নুরুল হাসান সোহান। ক্রিজে এসেই সাকিবের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝি কেড়ে নেয় কাইরন পোলার্ডকে।

এরপর সাকিবের সঙ্গে যোগ দিয়ে পরিস্থিতি বদলান রাসেল। ডেলপোর্টের বলে আউট হয়ে গিয়েছিলেন ২২ রানে। কিন্তু ‘নো’ বলের কারণে বেঁচে যান তিনি। এরপর চালিয়েছেন কিছুক্ষণ, ম্যাচ এনেছেন দলের আরও নাগালে। কিন্তু ম্যাচ শেষ করে যেতে পারেননি। ২৩ বলে ৩৯ করে শানাকার বলে বাউন্ডারি লাইনে সেই ডেলপোর্টের হাতেই ধরা পড়েন রাসেল।

তখন ঢাকার জিততে দরকার ৩৫ রান। ভরসা ছিলেন সাকিব। সাকিবও তীরে তরি ভেড়াতে না পারায় শঙ্কা নিয়ে মাঠ ছেড়েছে টুর্নামেন্টের অন্যতম ফেভারিটরা।

এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ঝড়ো শুরু পেয়েছিল চিটাগং। মোহাম্মদ শাহজাদ আবারও ক্ষ্যাপাটে ব্যাট চালিয়ে বাড়াচ্ছিলেন রান। তবে পাওয়ার প্লে পুরো কাজে লাগাতে পারেননি, সুনীল নারাইনের বলে অতিরিক্ত পেটাতে গিয়ে স্টাম্পিং হয়ে ফেরেন।

দ্বিতীয় উইকেটে ইয়াসির আলির সঙ্গে আরেক জুটি গড়েন ডেলপোর্ট। ইয়াসির ফেরার পর মুশফিকের সঙ্গে জমে উঠে ডেলপোর্টের জুটি। দুজনের আগ্রাসী ব্যাটে উড়ন্ত অবস্থায় চলে যায় চিটাগং। ৭৯ রানের জুটির পর একদম শেষ ওভারে গিয়ে বিপর্যন্ত। আন্দ্রে রাসেলের টানা তিন বলে ফেরেন মুশফিক, ডেলপোর্ট, আর লঙ্কান দাসুন শানাকা।

রাসেল হ্যাটট্রিক করে বসলেও ভাইকিংসের রানটা ১৭০ ছাড়িয়েছে ঠিকই। সেই রান ডিফেন্ড করার মতো তাগদও পরে দেখিয়েছে তারা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

চিটাগং ভাইকিংস :  ২০ ওভারে ১৭৪/৫ (শাহজাদ ২১, ডেলপোর্ট ৭১, ইয়াসির ১৯, মুশফিক ৪৩, শানাকা ০, রাজা ৬*, মোসাদ্দেক ১* ; ব্রিচ ০/৩৫, রাসেল ৩/৩৮, সাকিব ০/২৪, নারাইন ২/২০, রুবেল ০/৪২, মাহমুদুল ০/৮)

ঢাকা ডায়নামাইটস:    ২০ ওভারে ১৬৩/৯     (মিজানুর ১১, নারাইন ০, রনি ৬, সাকিব  ৫৩, নুরুল ৩৩, পোলার্ড ১, রাসেল ৩৯, শুভাগত ৫, ব্রিচ ৬*, মাহমুদুল ২* ; জায়েদ ৩/২৫, খালেদ ০/৩৫, নাঈম ১/৩৭, ডেলপোর্ট  ১/৩১)

ফল: চিটাগং ভাইকিংস ১১ রানে জয়ী।

 

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here