মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর জাপানের কাছে সোয়া দুই বিলিয়ন ডলারের ক্ষেপণাস্ত্র বিক্রির অনুমোদন নিয়েছে। এর আওতায় জাপানের কাছে মার্কিন লকহিড মার্টিন এজিস উপকূলীয় ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা বিক্রি করা হবে।

চীনকে ঠেকাতে জাপানের চলমান সামরিক শক্তি বৃদ্ধির তৎপরতার অংশ হিসেবে এ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা কেনা হচ্ছে। মার্কিন এজিস নৌ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থারই ভূমিভিত্তিক সংস্করণ হলো এটি। এর আগেই জাপানের কোনো কোনো ডেস্ট্রয়ারে এই ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা বসানো হয়েছে।

ভূমিভিত্তিক এ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা ২০২৩ সালের মধ্যে বসানো হবে। এ ব্যবস্থা থেকে টোমাহক ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রসহ অন্যান্য ক্ষেপণাস্ত্রও ছোঁড়া সম্ভব। ফলে এ ব্যবস্থা আত্মরক্ষার বদলে আক্রমণাত্বক কাজেও লাগানো যেতে পারে। এ কারণেই এমন ব্যবস্থা জাপানে বসানো নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে।

এর আগে, পোল্যান্ড এবং রোমানিয়ায় এ ব্যবস্থা মোতায়েন করেছে আমেরিকা। সে সময়ে রাশিয়া তার কঠোর সমালোচনা করেছে। রাশিয়া বলেছে, এর মাধ্যমে রুশ নিয়ন্ত্রিত ইউরোপে হঠাৎ ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানোর পাল্লার মধ্যে এসে গেছে।

ভূমিভিত্তিক এ ব্যবস্থা জাপানে বসানো হবে বলে ২০১৭ সালে প্রথম ঘোষণা করা হয়েছিল। একই ভাবে চীনও তখন জাপ-মার্কিন পরিকল্পনার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছিল।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here