মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, তালেবানের সঙ্গে তার প্রশাসনের চলমান সংলাপে কোনো ‘চুক্তি’তে পৌঁছো সম্ভব হলে আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার করা হবে। তিনি বৃহস্পতিবার হোয়াইট হাউজে এই ঘোষণা দিয়ে বলেন, তালেবানরা প্রথমবারের মতো আফগানিস্তানে শান্তি ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠা এবং একটি চুক্তিতে পৌঁছার আগ্রহ প্রকাশ করেছে। যদি চুক্তি করা সম্ভব হয় তাহলে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার করা হবে।

ট্রাম্প বলেন, তার প্রশাসন প্রথমবারের মতো তালেবানের সঙ্গে গুরুত্বের সঙ্গে আলোচনা চালাচ্ছে এবং এর পেছনে কারণও আছে। এ পর্যন্ত আলোচনা সন্তোষজনকভাবে এগিয়েছে বলেও মার্কিন প্রেসিডেন্ট দাবি করেন।

গত শনিবার কাতারের রাজধানী দোহায় তালেবান ও মার্কিন প্রতিনিধিরা তাদের ছয় দিনব্যাপী সংলাপ শেষ করেন। আফগান সরকার বলেছে, মার্কিন কর্তকর্তারা তাদেরকে এই বলে আশ্বস্ত করেছেন যে,তালেবানের সঙ্গে আমেরিকার আলোচনার মূল লক্ষ্য আফগানিস্তানে শান্তি প্রতিষ্ঠার ব্যবস্থা করে বিদেশি সেনা প্রত্যাহার করা।

এদিকে তালেবান সূত্র বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছে, দোহা সংলাপে দু’পক্ষ একটি শান্তি চুক্তির খসড়া প্রণয়নে সম্মত হয়েছে। আগামী ১৮ মাসের মধ্যে আফগানিস্তান থেকে সব বিদেশি সেনা প্রত্যাহারের ব্যাপারেও ঐক্যমত্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বলে তালেবান দাবি করেছে। কিন্তু মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র পরে সেনা প্রত্যাহারের কোনো সময়সীমা নির্ধারণের কথা অস্বীকার করেছে।

তালেবান আমেরিকার সঙ্গে সরাসরি আলোচনায় বসলেও আফগান সরকারের সঙ্গে সংলাপে অনীহা প্রকাশ করেছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here