দুই গোল খেয়ে হারতে বসেছিল বার্সেলোনা। এরপর জ্বলে ওঠলেন লিওনেল মেসি। তার করা দুই অর্ধে দুই গোলে নিজেদের মাঠে হারের লজ্জা এড়িয়েছে কাতালান ক্লাবটি।

কাম্প নউয়ে শনিবার রাতে লা লিগার ম্যাচটিতে ২-২ গোলে ড্র করে বার্সেলোনা। স্পেনের শীর্ষ লিগের ম্যাচটিতে আট ম্যাচ পর পয়েন্ট হারাল গত আসরের চ্যাম্পিয়নরা।

এই জয়ে ২২ ম্যাচে ৫০ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে বার্সেলোনা। তাদের চেয়ে এক ম্যাচ কম খেলে ৪৪ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ। তিন নম্বরে থাকা রিয়াল মাদ্রিদ (৩৯) বার্সার চেয়ে ১১ পয়েন্ট পেছনে।

শুরুতে মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগেনের পরীক্ষা নেয় ভ্যালেন্সিয়া। ৩ মিনিটে বক্সের প্রান্ত থেকে অধিনায়ক দানিয়েল পারেহোর শট সহজে রুখে দেন বার্সা গোলরক্ষক। দুই মিনিট পর আবারও পারেহোকে ফিরিয়ে দেন টের স্টেগেন, কিন্তু বল চলে যায় ডেনিশ চেরিশেভের পায়ে। রাশিয়ান ফরোয়ার্ডের শট পোস্টে লেগে ফিরে যায়।

১০ মিনিটে পারেহো আবার সুযোগ নষ্ট করেন গোলবারের উপর দিয়ে বল মেরে। বার্সা প্রথমবার লক্ষ্যে শট নেয় ১৬ মিনিটে। ফিলিপ্পে কৌতিনিয়োকে ব্যর্থ করেন অতিথি গোলরক্ষক নেতো। বেশ কয়েকটি সুযোগ নষ্ট করলেও দুর্বার আক্রমণের পসরা সাজিয়ে এগিয়ে যায় ভ্যালেন্সিয়া। ২৪ মিনিটে রদ্রিগোর অ্যাসিস্টে কেভিন গামেইরো গোলমুখ খোলেন।

দুই মিনিট পর কৌতিনিয়োর শক্তিশালী শটে আত্মঘাতী গোল করে বসেছিলেন এজিকুয়েল গ্যারে। কিন্তু শেষ মুহূর্তে রুখে দেন নেতো। ৩১ মিনিটে আবার ধাক্কা খায় বার্সা। সের্হি রবের্তো বক্সের মধ্যে ওয়াসকে ফাউল করে হলুদ কার্ড দেখেন। পেনাল্টি থেকে পারেহো ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ৩২ মিনিটে।

৩৭ মিনিটে ভাগ্য সহায় হয় বার্সার। সেমেদো ভ্যালেন্সিয়ার বক্সে ফাউল হন। ভিএআর দেখে রেফারি পেনাল্টির সিদ্ধান্ত জানালে মেসি করেন গোল। ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো (৬১) ও উগো সানচেসের (৫৬) পর লা লিগার ইতিহাসে তৃতীয় খেলোয়াড় হিসেবে পেনাল্টি থেকে ৫০ গোলের মাইলফলক স্পর্শ করলেন তিনি।

বিরতির দুই মিনিট আগে সমতা ফেরানোর সুবর্ণ সুযোগ নষ্ট করে বার্সা। রবের্তোর শট নেতো ঠেকান। বল পোস্টে লেগে মেসির পায়ে যায়। আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডকে দ্বিতীয় চেষ্টায় রুখে দেন ভ্যালেন্সিয়া গোলরক্ষক।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে বার্সা গোল পেতে পারতো। কার্লস অ্যালেনার পাস থেকে ৪৭ মিনিটে মেসির শট নেতোর গায়ে লেগে ব্যর্থ হয়। অ্যালেনা আবারও হতাশ হন ৫৫ মিনিটে বল গোলপোস্টে লাগলে। দুই মিনিট পর ইভান রাকিতিচকে সহজে রুখে দেন নেতো।

ম্যাচের সময় এক ঘণ্টা পার হতেই তৃতীয় গোলের একেবারে কাছে ছিল ভ্যালেন্সিয়া। পারেহো বল বাড়িয়ে দেন ওয়াসকে, তার পাসে গোলমুখের বেশ কাছ থেকে শট নেওয়া মোরেনোকে ব্যর্থ করেন টের স্টেগেন। ৬৩ মিনিটে মোরেনো আরও একবার লক্ষ্যে শট নেন, এবার বল ক্রসবারের উপর দিয়ে যায়।

এর ঠিক পরের মিনিটে বার্সা সমতা ফেরায়। ভ্যালেন্সিয়া বক্সের মধ্যে বলের দখল হারালে আর্তুরো ভিদাল পাস দেন মেসিকে, আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড বক্সের বাইরে থেকে বাঁপায়ের বাঁকানো শটে লক্ষ্যভেদ করেন।

এগিয়ে গিয়েও দুই গোল হজম করা ভ্যালেন্সিয়া যে হাল ছাড়েনি তার প্রমাণ দেয় ৮০ মিনিটে। বদলি নামা স্যান্টি মিনা পরীক্ষা নেন টের স্টেগেনের। জার্মান গোলরক্ষক তাকে রুখে দিয়ে বার্সাকে স্বস্তিতে রাখেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here