নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ১০ বছর পর ওয়ানডে সিরিজ জয় আগেই নিশ্চিত করেছিল ভারত। কিন্তু চতুর্থ ম্যাচে স্বাগতিকদের বিপক্ষে হতাশা উপহার দিয়ে সমালোচনায় পড়েছিল বিরাট কোহলি বিহীন দলটি। শেষ পর্যন্ত পঞ্চম ও শেষ ম্যাচটি আম্বাতি রাইডু ও হার্দিক পান্ডিয়ার দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে জয়ে রাঙাল সফরকারীরা। তাতে ৪-১ এ সিরিজ পুকেটে পুরে উল্লাসে মাতে রোহিত শর্মা-মহেন্দ্র সিং ধোনিরা।

ওয়েলিংটনে রোববার পাঁচ ম্যাচ সিরিজের শেষ ম্যাচে ৩৫ রানে জিতেছে ভারত। ২৫২ রান তাড়ায় ৪৪ ওভার ১ বলে ২১৭ রানে গুটিয়ে যায় নিউ জিল্যান্ড। পাঁচ ম্যাচের সিরিজ ৪-১ ব্যবধানে ঘরে তুলেছে সফরকারীরা।

ওয়েস্টপ্যাক স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ১৮ রানের মধ্যে চার উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় ভারত। তবে সফরকারীরা ঘুরে দাঁড়ায় রাইডুর ব্যাটে। বিজয় শঙ্করের সঙ্গে ৯৮ ও কেদার যাদবের সঙ্গে তিনি গড়েন ৭৪ রানের দুটি কার্যকর জুটি। শেষ পর্যন্ত রাইডু ১১৩ বলে ৯০ রান করে ফেরেন সাজঘরে।

রাইডু ফিরে গেলেও শেষের দিকে ঝড় তোলেন হার্দিক পান্ডিয়া। ২২ বলে পাঁচ ছয় ও দু্ই চারে গড়া ৪৫ রানের বিধ্বংসী ইনিংসে দলকে তিনি নিয়ে যান আড়াইশ রানে।

২৫৩ রানের পুঁজি নিয়ে শুরুতেই কিউইদের চেপে ধরেই মোহাম্মদ শামি। তার ছোবলেই ৩৮ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বসে স্বাগতিকরা। পরে অবশ্য টম ল্যাথামের সঙ্গে ৬৭ রানের জুটিতে প্রতিরোধ গড়েন কেন উইলিয়ামসন। কেদারকে উড়ানোর চেষ্টায় সীমানায় অধিনায়ক ধরা পড়লে ভাঙে জুটি। দ্রুত ফিরে যান ল্যাথাম ও কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম।

দ্রুত উইকেট হারালেও নিউজিল্যান্ডের আশা বাঁচিয়ে রেখেছিলেন জেমস নিশাম। ৩২ বলে ৪৪ রানও করেছিলেন এই অলরাউন্ডার। কিন্তু এ বাঁহাতি রানআউটে কাটা পড়তেই সব শেষ হয়ে যায় স্বাগতিকদের। শেষের দিকে মিচেল স্যান্টনার, হেনরিরা শুধু পরাজয়ের ব্যবধান কমিয়েছেন।

চেহেল ৩ উইকেট নিয়েছেন ৪১ রানে। দুটি করে উইকেট নেন শামি ও পান্ডিয়া।

৯০ রানের চমৎকার ইনিংসের জন্য ম্যাচ সেরা হয়েছেন রাইডু। চার ম্যাচে ৯ উইকেট নিয়ে সিরিজ সেরার পুরস্কার হয়েছেন মোহাম্মদ শামি।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here