দেশের গণমাধ্যম এখন যথেষ্ট স্বাধীনভাবে কাজ করছে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। শুক্রবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) মিলনায়তনে টেলিভিশন সাংবাদিকদের নবগঠিত প্ল্যাটফর্ম ‘সম্প্রচার সাংবাদিক কেন্দ্রর উদ্বোধন ও সম্প্রচার সম্মেলন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

কেবল অপারেটরদের সতর্ক করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, দেশের কেবল অপারেটরেরা ডাউনলিংক করে বিদেশি চ্যানেল প্রদর্শন করছেন৷ বিদেশি চ্যানেল প্রদর্শন কোনো অপরাধ নয়। কিন্তু সরকারের অনুমতি ছাড়া ও কর না দিয়ে বিদেশি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন প্রচার করা আইনগতভাবে দণ্ডনীয় অপরাধ৷ যাঁরা এই কাজগুলো করছেন, তাঁরা আইন লঙ্ঘন করছেন৷

বিদেশি শিল্পীদের তৈরি বিজ্ঞাপন টেলিভিশন সাংবাদিকতার জন্য ক্ষতি বয়ে আনছে মন্তব্য করে হাছান মাহমুদ বলেন, আমাদের ছেলেমেয়েরাই কালজয়ী, হৃদয়গ্রাহী মানুষের গভীরে পতিত হয়-এমন অনেক বিজ্ঞাপন তৈরি করেছে। কিন্তু সম্প্রতি দেখা যাচ্ছে, বিদেশের সেকেন্ড গেয়ার শিল্পী দিয়ে বিজ্ঞাপন তৈরি করা হচ্ছে। সেটি ভারত এবং বাংলাদেশ সব জায়গায় প্রদর্শন করা হচ্ছে। এতে করে এই সেক্টরটি সার্বিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এসময় টেলিভিশনের জন্য আলাদা সম্প্রচার নীতিমালা ও আইন করা হবে বলে জানান তিনি।

আত্মপ্রত্যয়ী প্রজন্ম তৈরিতে গণমাধ্যমের ভূমিকা অনস্বীকার্য বলে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, টেলিভিশনের কন্টেন্ট তৈরির ক্ষেত্রে সমাজের অসংগতির পাশাপাশি দেশ গঠনের লক্ষ্য মাথায় রাখতে হবে। টেলিভিশন মাধ্যমকে সুরক্ষা দেয়ার জন্য সকলের সহযোগিতা দরকার।

অনুষ্ঠানে অংশ নেন স্পিকার শিরিন শারমিন চৌধুরীও। তিনি সম্প্রচারের সাথে সম্পৃক্ত সাংবাদিকরা যেন তাদের লক্ষ্যে পৌছাতে পারে সেই প্রত্যাশা করেন। এরপরই তিনি অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন।

সম্মাননা পর্বে সম্প্রচার সাংবাদিক কেন্দ্র গঠনে ভূমিকা রাখায় তিনজনকে সম্মাননা দেওয়া হয়৷ মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক রেজোয়ানুল হক সংগঠনের চেয়ারম্যান ও একাত্তর টেলিভিশনের বার্তাপ্রধান শাকিল আহমেদ সদস্যসচিব হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন ৷

সম্মাননা পর্ব শেষে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এটিএন নিউজের বার্তাপ্রধান মুন্নী সাহার সঞ্চালনায় শুরু হয় মূল আলোচনা৷ ‘সম্প্রচার শিল্প: একটি সম্ভাবনার সংকট’ শীর্ষক ঘণ্টাব্যাপী এই আলোচনায় অংশ নেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ, বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক শাহ আলমগীর, একাত্তর টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক বাবু, বাংলাদেশ প্রতিদিনের সম্পাদক নঈম নিজাম, সাবেক সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর ও জিটিভির প্রধান সম্পাদক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা৷

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here