অমিতাভ বচ্চন ও রেখার সম্পর্কের কথা কম-বেশি সবারই জানা। এই সম্পর্ক নিয়ে সবসময় একটা বিতর্ক কাজ করে গেছে। তবে, এই সম্পর্কের কথা নিজের মুখে কখনও স্বীকার করেননি বিগ বি। অন্য়দিকে, রেখা এই সম্পর্ক নিয়ে ছিলেন খোলামেলা। ১৯৮৪ সালে সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্য়মকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে রেখা অমিতাভের প্রতি নিজের অনুভূতির কথা জানিয়েছিলেন। একে অপরকে যে ভালোবাসেন সেই কথাও স্বীকার করেছিলেন।

শুধু যে সম্পর্কের কথা স্বীকার করে নিয়েছিলেন তা নয়, জয়া বচ্চনের ইমেজ নিয়েও মুখ খুলেছিলেন অভিনেত্রী। তাঁর মতে, জয়া ও অমিতাভের সম্পর্কের মধ্য়ে তিনি সম্পূর্ণ অন্য় একজন মহিলা। সেখানে জয়া নিজের ‘কিউট বেচারি ইমেজ’-টা ধরে রেখেছে। তবে কি কোথাও অভিমান বাসা বেঁধেছে রেখার মনে ? অমিতাভ তো কোনওদিনই সম্পর্কটিকে স্বীকার করে নেননি, সেই নিয়ে বা কী মনে করেন তিনি ? এই প্রসঙ্গে রেখা বলেন, “কেন স্বীকার করবেন অমিতাভ ? নিজের ইমেজকে ঠিক রাখতে চান উনি। পরিবারের জন্য়, নিজের বাচ্চাদের জন্য তিনি হয়তো কোনওদিন স্বীকার করেননি। আমার কিছু যায়ে আসে না লোকে কী ভাবে। আমি ওঁকে ভালোবাসি, ওঁ আমাকে ভালোবাসে।”

তিনি আরও বলেন, “আমরা প্রত্য়েকেই মানুষ। আমরা যা দেখি সেটাকেই গ্রহণ করি, সেটাকেই ভালোবাসি। কিন্তু, আমি যতদিন এই মানুষটির সঙ্গে আছি , আমার কোনও ভয় নেই। আমি অন্য় কারওর সঙ্গে নিজের পরিচিতি জুড়তে পারব না। এই কথাগুলো আবার লিখবেন না। কারণ ওঁ আবার অস্বীকার করবে। আর আমি আবার একই কথা বলব।”

কোথাও কি না পাওয়ার যন্ত্রণাই রেখার এই মন্তব্য়ের কারণ। অফস্ক্রিন হোক বা অনস্ক্রিন তাঁদের কেমিস্ট্রি দর্শককে আনন্দ দিয়েছে। জয়ার বিরুদ্ধে কোনও চাপা ক্ষোভ থেকে গেছে রেখার মনে ! “আমি কী বললাম তাতে কেউ কান দেয় না। কারণ আমি তো তৃতীয় ব্যক্তি। কোন বাবা-মা অপ্রস্তুত হবে না বলুন তো যখন তাঁরা জানবে তাঁদের ছেলের অন্য় একজনের সঙ্গে সম্পর্ক আছে। বাইরের ইমেজটাই তো সবাই দেখে, ভেতরটা কেউ দেখে না। কারণ অপরপক্ষের এই ‘কিউট বেচারি ইমেজ’-টাই খুব ভালোভাবে চোখে পরে।”

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here