ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো পর্তুগালের ক্লাব থেকেই অ্যালেক্স ফার্গুসনের নজরে পড়েছিলেন। টিনেজার হিসেবে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যোগ দিয়ে হয়েছেন বিশ্বের অন্যতম সেরা ফুটবলার। ওল্ড ট্র্যাফোর্ড হয়ে বার্নাব্যু, তারপর তুরিন, সবখানেই একের পর এক ইতিহাস লিখছেন পাঁচবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী সিআর সেভেন।

সে কথা মাথায় রেখেই পর্তুগালের নতুন রোনালদোকে পাখির চোখ করেছে ম্যানইউ। যাকে রাডারে রেখেছে মাদ্রিদ, জুভেন্টাস, এসি মিলান, বার্সেলোনা, বরুশিয়া ডর্টমুন্ডও।

পর্তুগালের অন্যতম ঐতিহ্যপূর্ণ ফুটবল ক্লাব বেনফিকার ফুটবলার জোয়াও ফেলিক্সের জন্য ১০০ মিলিয়ন ইউরো খরচ করতে রাজি রেড ডেভিলরা। দ্য সানের খবর, এই পরিমাণ অর্থই ফেলিক্সের জন্য চাইতে পারে বেনফিকা। যদিও আগে তার রিলিজ ক্লজ ১২০ মিলিয়ন ইউরোর কথা বলা হয়েছিল।

আগামী দিনের তারকা বলা হচ্ছে ফেলিক্সকে। ১৯ বছর বয়সী এই ফুটবলার চলতি মৌসুমে ৯টি লিগ ম্যাচে চারটি গোল এবং একটি অ্যাসিস্ট করেছেন।

গত কয়েক বছর রীতিমতো দাপিয়ে খেলছেন বেনফিকার জার্সিতে। ২০১৫ সালে প্যাডরোনেস থেকে বেনফিকায় যোগ দেন তিনি। তার আগে ৬ বছর পর্তুগালের আরেক জনপ্রিয় দল পোর্তোর ফুটবলার ছিলেন। তার প্রাইমারি পজেশন দ্বিতীয় স্ট্রাইকার। তবে অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার এবং উইঙ্গার হিসাবেও খেলতে পারেন ফেলিক্স।

ব্রাজিলিয়ান ফিলিপ কৌতিনহোর খেলার সঙ্গে তার অনেকটা মিল রয়েছে। স্কিল আর টেকনিকে তার মধ্যে পর্তুাগালের সাবেক মিডফিল্ডার ডেকোকে খোঁজও পাওয়ায় যা। অনেকে তাকে নতুন ‘ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো’ তকমা দিচ্ছেন।

সৃজনশীলতা এবং খেলা গতির জন্য ফেলিক্সের মধ্যে রুই কস্তা ও জিনেদিন জিদানের ছায়া দেখছেন অনেকে। ইয়োহান ক্রুইফ ও বর্তমানে ম্যানচেস্টার সিটিতে খেলা পর্তুগালের আরেক তারকা বেনার্দো সিভলাকে তার মধ্যে খুঁজে পাচ্ছেন কেউ কেউ।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here