প্রথমার্ধের খেলাটা ম্যাড়মেড়ে ভাবেই শেষ হচ্ছিল। তখনই বিতর্কিত এক পেনাল্টি গোলে এগিয়ে যায় বার্সেলোনা। এরপরই বদলে যায় ম্যাচের চিত্র। ব্যবধান বাড়াতে মুহুর্মুহু আক্রমণ করে কাতালানরা। কিন্তু স্ট্রাইকাররা যেন গোল করতেই ভুলে গেলেন। এমনকি স্বয়ং লিওনেল মেসিও। অর্ধ ডজনবার তো গোলরক্ষককে একাই পেলেন। পেলেন আবার পেনাল্টিও। কিন্তু জালের ঠিকানা যেন ভুলেই গেল দলটি।

বার্সেলোনার ফরোয়ার্ডরা হয়তো এদিন গোল করা ভুলে গিয়েছিলেন। তার জন্য হয়তো কিছুটা দায় রিয়াল ভায়াদলিদ গোলরক্ষক জর্দি মাসিপকে দিতে পারেন তারা। একের পর এক দুর্দান্ত সেভ করে গেছেন তিনি। ঠেকিয়েছেন মেসির করা একটি পেনাল্টিও। নিশ্চিত গোলই বাঁচিয়েছেন কমপক্ষে পাঁচটি। তাতে অবশ্য শেষ রক্ষা হয়নি। প্রথমার্ধের সেই পেনাল্টি গোলেই হার দেখতে হয় তাদের। ১-০ গোলের স্বস্তির জয়ে মাঠ ছাড়ে মেসির দল।

প্রথমার্ধের খেলার শেষ দিকে স্পট কিক থেকে গোলটি করেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড মেসি। তার এই গোলে সব ধরনের প্রতিযোগিতায় তিন ড্রয়ের পর জয়ের দেখা পেল এরনেস্তো ভালভেরদের দল।

নিজেদের মাঠে ম্যাচের প্রথমার্ধে খুব একটা নজরকাড়া ছিল না বার্সেলোনার খেলা। এই সময়ে বরং ভীতি ছড়িয়েছে পয়েন্ট টেবিলের নিচের সারির দল ভাইয়াদোলিদ।

ম্যাচের ৪৩তম মিনিটে কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা পায় স্বাগতিক দল। সফল পেনাল্টি শটে জালে বল জড়ান মেসি। ভাইয়াদোলিদের মিডফিল্ডার মিচেল ডি-বক্সে জেরার্দ পিকেকে ফাউল করলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। এই সিদ্ধান্তে অতিথি দলের খেলোয়াড়রা প্রতিবাদ জানালেও ভিএআরের সাহায্য নেননি রেফারি।

এই গোলে চলতি মৌসুমে সব ধরনের প্রতিযোগিতায় মেসির গোল দাঁড়িয়েছে ৩০টি। এর মধ্যে লা লিগায় গোল ২২টি! বার্সেলোনার হয়ে গত ১১ মৌসুমের প্রতিবারই অন্তত ৩০টি গোল করেছেন আক্রমণভাগের এই খেলোয়াড়।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই আক্রমণে গতি বাড়ায় বার্সেলোনা। একের পর এক গোলের সুযোগ তৈরি করেও কাজে লাগাতে পারছিল না তারা। দারুণ খেলেছেন ভাইয়াদোলিদের গোলরক্ষক জর্দি মাসিপ। খুব কাছ থেকে নেওয়া মেসি ও লুইস সুয়ারেসের বেশ কয়েকটি শট রুখে দেন তিনি।

ম্যাচের শেষ দিকে বার্সেলোনার বদলি খেলোয়াড় ফিলিপে কৌতিনিয়ো ডি-বক্সে ফাউলের শিকার হলে আবার পেনাল্টি পায় বার্সেলোনা। কিন্তু মেসির নেওয়া এবারের স্পট কিকটি রুখে দেন মাসিপ।

এই জয়ে লিগের পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা বার্সেলোনার পয়েন্ট দাঁড়িয়েছে ২৪ ম্যাচে ৫৪।

৭ পয়েন্ট কম নিয়ে দ্বিতীয়স্থানে আছে দিনের অপর ম্যাচে রায়ো ভায়োকানোকে ১-০ গোলে হারানো আতলেতিকো মাদ্রিদ। তৃতীয়স্থানে আছে রিয়াল মাদ্রিদ। তাদের পয়েন্ট ২৩ ম্যাচে ৪৫।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here