লেবানন সরকারের ওপর ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হিজবুল্লাহর প্রভাব বেড়েছে বলে সে দেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত যে অভিযোগ করেছেন তা নাকচ করে দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট মিশেল আউন।

বুধবার সন্ধ্যায় তিনি বলেছেন, “এটা হচ্ছে মার্কিন মতামত এবং বাস্তবতার সঙ্গে তা সাংঘর্ষিক। আগের সরকারে যে অবস্থান ছিল বর্তমান সরকারে হিজবুল্লাহর অবস্থান একই আছে এবং লেবাননের ওপর এ সংগঠনের প্রভাব বাড়ছে বলে বলে মার্কিন রাষ্ট্রদূত যে দাবি করেছেন তা সত্য নয়।”

মিশেল আউন বলেন, “কিছু রাজনৈতিক চক্র এ নিয়ে কথা বলে এবং তারা নিতান্তই গুরুত্বহীন বিষয় নিয়ে ঝগড়ার জন্য আলোচনা তোলে। নিরাপত্তা নিয়ে বিশেষ করে দক্ষিণ লেবানন ও বেকা উপত্যকায় হিজবুল্লাহর প্রভাব নিয়েও তারা কথা বলে। অথচ বাস্তবতা হচ্ছে- লেবাননের সামরিক বাহিনীর ওপরে কোনো নিরাপত্তা কর্তৃপক্ষ নেই যারা সম্প্রতি দেশে নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা রক্ষার জন্য বড় ধরনের অভিযান চালিয়েছে।”

মঙ্গলবার মার্কিন রাষ্ট্রদূত এলজাবেথ রিচার্ড লেবাননের প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন এবং লেবাননের মন্ত্রিসভার ওপর হিজবুল্লাহর প্রভাব বেড়ে যাওয়ার কথা বলে আমেরিকার পক্ষ থেকে উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here