তামিম ইকবালের দারুণ ইনিংস সত্ত্বেও ২৩৪ রানে গুটিয়ে যাওয়া বাংলাদেশ বোলিংয়ে নিষ্প্রভ। নিউজিল্যান্ড কোনও উইকেট না হারিয়ে ৮৬ রানে প্রথম দিনের খেলা শেষ করেছে। বাঁহাতি ওপেনারের সেঞ্চুরির পরও দিনটা সফরকারীদের হয়নি। অবশ্য হ্যামিল্টন টেস্টে এখনও বাংলাদেশ এগিয়ে ১৪৮ রানে।

বিনা উইকেটে ৮৬ রানে বৃহস্পতিবারের খেলা শেষ করেছে নিউ জিল্যান্ড। দলটির দুই ওপেনার জিত রাভাল ৫১ ও টম ল্যাথাম ৩৫ রান নিয়ে ব্যাট করছেন। দশ উইকেট হাতে নিয়েও দ্বিতীয় দিন ব্যাটিংয়ে নামবে তারা।

এর আগে সেডন পার্কে ২৩৪ রানে গুটিয়ে যায় টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নামা বাংলাদেশ। ওপেনিং জুটিতে দলকে ভালো একটি শুরু এনে দিয়েছিলেন তামিম ও সাদমান ইসলাম। দলীয় ৫৭ রানে থামে এ জুটি। ট্রেন্ট বোল্টের বলে বোল্ড হন ৩২ বলে ২৪ রান করা সাদমান।

এরপর একাই দাপটের সঙ্গে ব্যাট চালিয়ে যান তামিম। ৩৭ বলে পূর্ণ করেন অর্ধশতক। একশো বলে তুলে নেন টেস্ট ক্যারিয়ারে নিজের নবম সেঞ্চুরি। দলীয় ১৮০ রানে থামে তার ব্যাট। কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমের বলে গালিতে ক্যাচ দেন কেইন উইলিয়ামসনকে।

এর আগে ১২৮ বলে ১২৬ রান করেন তামিম। তার ইনিংসটিতে রয়েছে ২১টি চার ও এক ছক্কা! অসাধারণ ইনিংসটি খেলার পথে মমিনুল হকের সঙ্গে ৬৪ ও মোহাম্মদ মিথুনের সঙ্গে ২৬ রানের জুটি গড়েন বাংলাদেশ দলের এই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান।

অনেকটা সময় নিলেও ঠিকতে পারেননি মমিনুল (১২)। থিতু হয়ে ফিরেছেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ (২২)। ব্যক্তিগত ইনিংস লম্বা করার পথেই এগুচ্ছিলেন লিটন দাস। কিন্তু ৫৮ বলে ২৯ রান করেই ফিরতে হয় তাকে। দুই অঙ্ক স্পর্শ করা অপর ব্যাটসম্যান মেহেদি হাসান মিরাজ (১০)।

নিউ জিল্যান্ডের বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে সফল ওয়াগনার। ১৬.২ ওভারে ৪৭ রান দিয়ে ৫ উইকেট নেন তিনি। ৭৬ রানে তিন উইকেট নেন সাউথি। একটি করে উইকেট ট্রেন্ট বোল্ট ও গ্র্যান্ডহোমের।

 

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here