জঙ্গি দমন করতে মিডিয়া যেভাবে সহযোগিতা করেছিলো, ঠিক মাদক দমনেও মিডিয়ার সেই ধরনের সহযোগিতা চেয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ থেকে জঙ্গিবাদ দমন করতে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা যেভাবে কাজ করেছে। আমাদের দেশের মিডিয়ারগুলোও সেভাবে সহযোগিতা করেছে। যার ফলে আজ আমরা জঙ্গি দমন করতে সক্ষম হয়েছি।

শনিবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে দৈনিক সময়ের আলো পত্রিকার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী সে সময় দুটি বিষয়ে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছিলেন। একটি জঙ্গি আরেকটি মাদক। তাই জঙ্গি দমনের পর, এবার মাদক দমনে মিডিয়ার সহযোগিতা চাই। আমি মিডিয়ার কর্মকর্তা ও সংবাদ কর্মীদের অনুরোধ করবো আপনারা মাদকের বিরুদ্ধে লেখেন।

তিনি বলেন, যদি দেশ থেকে মাদক নির্মূল না করা যায়। তাহলে আমাদের যে লক্ষ্য ২০২১, ২০৩০, ২০৪১ তা পথ হারাবে। যেটা আমরা হতে দিতে পারি না।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, আমি বিভিন্ন দেশে ঘুরতে গেলে, সে দেশের মানুষ আমাকে জিজ্ঞেস করে দুর্নীতির দেশ হয়েও কিভাবে আমরা আজ এগিয়ে যাচ্ছি। আপনাদের প্রধানমন্ত্রীর ম্যাজিকটা কি? আমি বলি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে ভালবাসেন, দেশের মানুষকে ভালোবাসেন। তাই আমরা উন্নয়নের উচ্চ শিখরের দিকে যাচ্ছি।

তিনি বলেন, আমরা আশা করবো। আমাদের সাংবাদিক সমাজ, দেশের উন্নয়ন নিয়ে কথা বলবে, দেশের জনগণ নিয়ে কথা বলবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ও ডিবিসি টেলিভিশেনর চেয়ারম্যান ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, ‘গণমাধ্যম হিসেবে অনেক ঝুঁকি থাকবে, চ্যালেঞ্জ থাকবে। সেগুলো মোকাবেলা করে দেশ, জাতির কল্যাণে এগিয়ে যাবে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে আমাদের অম্লমধুর সম্পর্ক। কখনো ভালো কখনো খারাপ। কিন্তু স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এর ব্যতিক্রম দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। তার নেতৃত্বে পেশাগত দায়িত্বপালনে আমরা আগের তুলনায় অনেক বেশি সহযোগিতা পেয়েছি। এর কারণ আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও মিডিয়াবান্ধব।’

ইকবাল সোবহান আরো বলেন, ‘দেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে তখনই দৈনিক সময়ের আলো পত্রিকার জন্ম ও পদযাত্রা শুরু হলো। গণমাধ্যমের কাজ নিয়মের বাইরে যারা অনিয়ম করছে তাদের মুখোশ টেনে উন্মোচন করা। সত্য প্রকাশেই গণমাধ্যমের কাজ। সময়ের আলো পত্রিকাটি সেপথেই এগিয়ে যাবে।’

তিনি বলেন, ‘২০৪১ সালের মধ্যে আমরা হব সমৃদ্ধ উন্নত দেশ। শেখ হাসিনার স্বপ্ন বাস্তবায়নে গোলাবারুদের প্রয়োজন নেই, প্রয়োজন সবার আন্তরিকতা, সততা। দেশ যেভাবে অর্থনৈতিক, রাজনৈতিকভাবে বৈশ্বিক অঙ্গনে এগিয়ে গেছে, সে পথযাত্রার অংশীদার হলো পত্রিকাটি। উন্নয়নের প্রতিচ্ছবি, জনকল্যাণকর সংবাদ পরিবেশন এবং সাদাকে সাদা, কালোকে কালো হিসেবে উল্লেখ করবে পত্রিকাটি। দেশের অর্থনৈতিক উন্নতি ও সাফল্যের নেপথ্যে যাদের অবদান তাদের সাফল্যগাঁথাও তুলে ধরা হবে।’

অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্যে জাতীয় পার্টির সাবেক মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, ‘সম্ভাবনার নতুন দ্বার উন্মুক্ত হয়েছে। এর প্রমাণ নতুন দৈনিকের পদযাত্রা। সমাজে এখনো অনেক মানুষ উপেক্ষিত। হলুদ সাংবাদিকতার জন্য অনেকে এখনো কষ্ট পান। সেখানে সময়ের আলো সঠিক সাংবাদিকতার মাধ্যমে বঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়াবে, মানুষের আস্থা তুলে ধরবে, সমাজের ত্রুটি বিচ্যুতি তুলে ধরবে।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন- আওয়ামী লীগের নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান, জাতীয় পার্টির সাবেক মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার, আমিন মোহাম্মদ গ্রুপের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. রমজানুল হক নিহাদ ও আমিনুল হক নাবিল, সংসদ সদস্য সাগুপ্তা এমিলি।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন পত্রিকার সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রতন ও প্রকাশক গাজী আহমদুল্লাহ।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here