পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, কাশ্মীরের পুলওয়ামা হামলায় ভারতের ৪০ সৈন্য নিহতের ঘটনায় অভিযুক্ত নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদের নেতার ভাইসহ ৪৪ জন সন্দেহভাজনকে আটক করেছে কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে পাকিস্তানের মন্ত্রণালয় জানায়, নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠনটির গুরুত্বপূর্ণ সদস্যসহ ৪৪ জন সন্দেহভাজনকে আটক করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছেন সংগঠনটির নেতা মাসুদ আজহারের ভাই মুফতি আব্দুল রউফ।

এদিকে মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে পাকিস্তানের নৌবাহিনী জানিয়েছে, তাদের জলসীমায় ভারতের একটি ডুবোজাহাজ (সাবমেরিন) অনুপ্রবেশের চেষ্টা করেছে। সেটিকে শনাক্ত করার পর প্রতিহত করা হয়েছে।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় ওই হামলায় ভারতের আধা সামরিক বাহিনীর ৪০ সদস্য নিহত হন। পাকিস্তান-ভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদ হামলার দায় স্বীকার করে। এরপর প্রতিবেশী দুদেশের সম্পর্কের চরম অবনতি ঘটে।

ভারত এই হামলার জন্য পাকিস্তানকে দায়ী করে প্রতিশোধ নেয়ার হুমকি দিতে থাকে। তবে পুলওয়ামা হামলায় পাকিস্তানের জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ভারত তাদের ওপর হামলা করলে পাকিস্তানও পাল্টা জবাব দেবে বলে হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

পুলওয়ামা হামলাকে কেন্দ্র করে গত সপ্তাহে পারমাণবিক ক্ষমতাধর দুদেশের মধ্যে যুদ্ধাবস্থার সৃষ্টি হয়।

গত সপ্তাহে পাকিস্তানের ভেতরে ভারতের বিমান বাহিনীর হামলার জবাবে কাশ্মীরে পাকিস্তান সেনাবাহিনী কর্তৃক ভারতের দুটি যুদ্ধ বিমান গুলি করে ভূপাতিত ও একজন পাইলটকে আটক করা হয়। পরে আটক ভারতীয় বিমানবাহিনীর পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে পাকিস্তান দেশে ফেরত পাঠানো হলেও কাশ্মীরের বিরোধপূর্ণ সীমান্তে দুদেশের গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এতে দুই পাকিস্তানি সেনা সদস্য ও ছয়জন বেসামরিক নাগরিকসহ অন্তত আটজন নিহত হন।

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ নিজেদের সংবরণ করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন এবং পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান শান্তি আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, ১৯৪৭ সালে বৃটিশ শাসনমুক্ত হওয়ার পর থেকেই অমীমাংসিত কাশ্মীর রাজ্য নিয়ে পারমাণবিক ক্ষমতাধর ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলছে। পাকিস্তানের অধীনে স্বাধীন রাজ্য হিসেবে কাশ্মীরকে চায় এক গোষ্ঠী। অন্যদিকে ভারতের অধীনে কাশ্মীরকে চায় আরেক গোষ্ঠী।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here