উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রথম ধাপে দেশের ৭৮টি উপজেলায় রবিবার সকাল থেকে ভোট গ্রহণ চলছে। কোনো বিরতি ছাড়াই এদিন সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে চলবে বিকাল ৪টা পর্যন্ত।

জাতীয় নির্বাচনের দুই মাস পর অনুষ্ঠেয় এই উপজেলা নির্বাচন বর্জন করেছে বিএনপি ও সরকার বিরোধী জোটগুলো।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোখলেছুর রহমান জানান, ১২ জেলার ৭৮টি উপজেলায় পাঁচ হাজার ৮৪৭টি ভোটকেন্দ্রের অধীনে এক কোটি ৪২ লাখ ৪৮ হাজার ৮৫০ জন ভোটার রয়েছেন।

রবিবার নির্বাচন হওয়া ১২টি জেলার মধ্যে রয়েছে- পঞ্চগড়, নীলফামারী, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, জামালপুর, নেত্রকোনা, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ, সিরাজগঞ্জ, জয়পুরহাট, নাটোর ও রাজশাহী।

প্রথম ধাপের এ নির্বাচনে ৭৮টি উপজেলায় মোট ২০৭ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী, ৩৮৬ জন ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী এবং ২৪৯ জন নারী ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এদিকে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী না থাকায় ১৫ জন চেয়ারম্যান, ছয়জন ভাইস চেয়ারম্যান ও সাতজন নারী ভাইস চেয়ারম্যান বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সংশ্লিষ্ট উপজেলায় রবিবার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

গত মঙ্গলবার থেকে ওইসব উপজেলায় পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি, কোস্টগার্ডসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। পাশাপাশি প্রতিটি উপজেলায় একজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও তিনটি ইউনিয়ন পরিষদের অধীনে একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

ভোটারা ও প্রার্থীর সংখ্যা : ইসি থেকে দেয়া তথ্য মতে, ৭৮ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মোট ভোটার সংখ্যা এক কোটি ৪২ লাখ ৪৮ হাজার ৮৫০ জন। মোট ভোটকেন্দ্র পাঁচ হাজার ৮৪৭টি।

চেয়ারম্যান পদে ২১৭ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪০৬ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২৭৩ জন পদে প্রতি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। প্রথম ধাপে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে চেয়ারম্যান ২০৭ জন, ভাইস চেয়ারম্যান ৩৮৬ জন এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান ২৪৯ জন।

যে সব উপজেলায় ভোটগ্রহণ  চলছে তাহলো-

রংপুর বিভাগ : পঞ্চগড় সদর উপজেলা, আটোয়ারী, বোদা, দেবীগঞ্জ ও তেঁতুলিয়া। কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী, ফুলবাড়ী, উলিপুর, নাগেশ্বরী, রাজারহাট, রাজিবপুর, কুড়িগ্রাম সদর, চিলমারী ও রৌমারী উপজেলা। নীলফামারী সদর, ডোমার, ডিমলা, জলঢাকা, সৈয়দপুর ও কিশোরগঞ্জ উপজেলা এবং লালমনিরহাট সদর, পাটগ্রাম, হাতীবান্ধা ও কালীগঞ্জ উপজেলা।

ময়মনসিংহ : জামালপুর সদর, সরিষাবাড়ী, ইসলামপুর, বকশীগঞ্জ ও দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা এবং নেত্রকোনা সদর, বারহাট্টা, দুর্গাপুর, খালিয়াজুরী, মোহনগঞ্জ, কেন্দুয়া, কলমাকান্দা ও মদন উপজেলা।

সিলেট : সুনামগঞ্জ সদর, ছাতক, দোয়ারাবাজার, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ, দিরাই, শাল্লা, ধর্মপাশা, বিশ্বম্ভরপুর ও তাহিরপুর উপজেলা এবং হবিগঞ্জ সদর, বাহুবল, মাধবপুর, চুনারুঘাট, লাখাই, নবীগঞ্জ, আজমিরীগঞ্জ ও বানিয়াচং উপজেলা।

রাজশাহী : সিরাজগঞ্জ সদর, বেলকুচি, চৌহালী, কাজীপুর, রায়গঞ্জ, শাহজাদপুর, তাড়াশ ও উল্লাপাড়া উপজেলা। জয়পুরহাট সদর, পাঁচবিবি, আক্কেলপুর, কালাই ও ক্ষেতলাল উপজেলা। নাটোরের বাগাতিপাড়া, গুরুদাসপুর, বড়াইগ্রাম, লালপুর ও সিংড়া। রাজশাহী জেলার তানোর, গোদাগাড়ী, মোহনপুর, বাগমারা, পুঠিয়া, দুর্গাপুর, চারঘাট ও বাঘা উপজেলা।

নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী : উপজেলা নির্বাচনে ২৪ জন রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। এর মধ্যে জ্যেষ্ঠ/জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ১২ জন এবং অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ১২ জন। সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে ৯৪ জন দায়িত্ব পালন করবেন। এর মধ্যে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ৪৬ জন এবং উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ৪৮ জন।

সাধারণ ভোটকেন্দ্রে ১৪ জন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। তাদের মধ্যে অস্ত্রসহ একজন পুলিশ, অস্ত্রসহ একজন আনসার (পিসি), অস্ত্র/লাঠিসহ একজন আনসার (এপিসি), আনসার সদস্য ১০ জন (লাঠিসহ) এবং একজন চৌকিদার/দফাদার (লাঠিসহ)।

গুরুত্বপূর্ণ বা ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে ১৫ থেকে ১৬ জন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। তাদের মধ্যে অস্ত্রসহ দুইজন পুলিশ, অস্ত্রসহ একজন আনসার (পিসি), অস্ত্র/লাঠিসহ একজন আনসার (এপিসি), আনসার সদস্য ১০ জন (লাঠিসহ) এবং এক থেকে দুইজন চৌকিদার/দফাদার (লাঠিসহ)।

ভোটকেন্দ্রে নিয়োজিত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা গত শুক্রবার থেকে নিয়োজিত রয়েছেন। তারা কাল সোমবার (১১ মার্চ) পর্যন্ত নির্বাচনি এলাকাগুলো নিয়োজিত থাকবেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here