যে দলটিকে আপনি চাইলে বিনা দ্বিধায় বসাতে পারেন টি-টোয়েন্টির রাজার আসনে, সেই উইন্ডিজ ঘরের মাঠে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজে হয়েছে নাস্তানাবুদ। শুধু যে ধবল ধোলাই হয়েছে তা নয়, সাথে সঙ্গী হয়েছে পরপর দুই ম্যাচেই ১০০ রানের নিচে অল আউট হওয়ার লজ্জার। দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টির মত কালও (১০ মার্চ) সেন্ট কিটসে ইংল্যান্ডের কাছে হেরেছে ৮ উইকেটের ব্যবধানে, নিজেরা অল আউট ৭১ রানেই।

আগের ম্যাচে ইংল্যান্ডের দেওয়া ১৮৩ রানের লক্ষ্য তাড়ায় নেমে মাত্র ৪৫ রানে গুটিয়ে গিয়ে করেছে নিজেদের টি-টোয়েন্টি ইতিহাসেরই সর্বনিম্ন স্কোর। কাল শেষ ও ধবল ধোলাই এড়ানো ম্যাচে শুরুতে ব্যাট করে করতে পেরেছে মাত্র ৭১ রান, যা টি-টোয়েন্টিতে ক্যারিবিয়ানদের তৃতীয় সর্বনিম্ন দলীয় সংগ্রহ।

টস জিতে ব্যাটিং করতে নামা উইন্ডিজ শুরু থেকে ডেভিড উইলির বোলিং তান্ডবে টালমাটাল, ২৪ রানেই নেই চার উইকেট, যার চারটিই উইলির। গেইল বিহীন ম্যাচে এরপর আর শুরুর ধাক্কা সামলানোর মত পাওয়া যায়নি কাউকেই। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ১১ রান করে এসেছে অভিষিক্ত ওপেনার ক্যাম্পবেল, অধিনায়ক জেসন হোল্ডার ও নিকোলাস পুরানের ব্যাট থেকে। এছাড়া ১০ রান করেন লেজের দিককার ব্যাটসম্যান ম্যাককো। ইংল্যান্ডের পক্ষে তিন ওভারে মাত্র ৭ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেন উইলি, ৯ রান খরচায় তিনটি মার্ক উডের।

৭২ রানের সহজ লক্ষ্য তাড়ায় কোন বিপর্যয় ছাড়াই ম্যাচ নিজেদের করে নেন ইংলিশরা। দুই ওপেনার তোলেন ২৮ রান, ১৩ বলে ৩ চার ১ ছক্কায় ২০ রান করে আউট হন অ্যালেক্স হেলস। আরেক ওপেনার জনি বেয়ারস্টো করেন ৩১ বলে ৩৭ রান। দুজনেই আউট হয়ে ফিরলেও কোন সমস্যা ছাড়াই জো রুট ও অধিনায়ক মরগান জয় নিয়েই মাঠ ছাড়েন।

উইন্ডিজের পক্ষে উইকেট দুটি ভাগাভাগি করেন জেসন হোল্ডার ও দেবেন্দ্র বিশু। পুরো সিরিজে দুর্দান্ত করা ক্রিস জর্ডান নির্বাচিত হন ম্যান অব দ্যা সিরিজ ও ডেভিড উইলি পেয়েছেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here