১৫৭ আরোহী নিয়ে কেনিয়া যাওয়ার পথে ইথিওপিয়ান এয়ারলাইন্সের বোয়িং-৭৩৭ বিমান বিধ্বস্তের পর এই একই মডেলের সকল বিমানের যাবতীয় ফ্লাইট বাতিল করতে এয়ারলাইন্সগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে চীন।

দেশটির বিমান নিয়ন্ত্রক সংস্থা জানিয়েছে, সোমবার (১১ মার্চ) স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে চীনের সকল অভ্যন্তরীণ বিমান সংস্থাগুলোকে বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স-৮ বিমানের সব ধরনের বাণিজ্যিক কার্যক্রম পুরোপুরি শেষ করতে হবে। খবর এএফপির।

প্রতিবেদনে বলা হয়, রবিবার (১০ মার্চ) স্থানীয় সময় সকাল ৮টা ৩৮ মিনিটে ইথিওপিয়ার আদ্দিস আবাবার বোল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে আট ক্রুসহ মোট ১৫৭ আরোহী নিয়ে কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবির উদ্দেশে যাত্রা করেছিল বোয়িং-৭৩৭ এর ম্যাক্স-৮ বিমানটি। পরে উড্ডয়নের মাত্র ছয় মিনিট পর একইদিন সকাল ৮টা ৪৪ মিনিটে রাডারের সঙ্গে বিমানটির যোগাযোগ পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

পরে ইথিওপিয় এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ এক বিবৃতিতে জানায়, ইথিওপিয়ায় বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স বিমানটি বিধ্বস্তের আগে উড্ডয়নের পরপরই কিছু যান্ত্রিক ত্রুটির জন্য বিমানবন্দরে ফেরত আসতে চেয়েছিল। যদিও কর্তৃপক্ষ তখন এয়ারলাইন্সের সেই পাইলটকে ফিরে আসার জন্য অনুমতিও দেওয়া হয়েছিল।

দুর্ঘটনার পর এ বিষয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ইথিওপিয়ান এয়ারলাইন্সের সিইও তৌলদে গ্যাব্রিমারিয়াম বলেন, ‘বিধ্বস্ত বিমানটির ১৪৯ আরোহী ও আট ক্রুর সবাই মারা গেছেন। নিহতদের মধ্যে মোট ৩৩ দেশের নাগরিক রয়েছেন। যাদের মধ্যে চীনের আট নাগরিকও আছেন। নিখোঁজদের সন্ধানে আমাদের তল্লাশি ও উদ্ধার অভিযান এখনো অব্যাহত আছে।’

উল্লেখ্য, নিরাপত্তার জন্য ইথিওপিয়ান এয়ারলাইন্সের একটি ভাল খ্যাতি রয়েছে। যদিও ২০১০ সালে প্রতিষ্ঠানটির অন্য একটি বোয়িং ভূমধ্যসাগরে বিধ্বস্ত হয়েছিল। আর সে সময় অন্তত ৯০ জনের প্রাণহানি হয়। গত পাঁচ মাসে এ নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স-৮ বিমান বিধ্বস্তের ঘটনা ঘটল।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here