প্রয়োজনের মুহূর্তে আরেকবার জ্বলে উঠলেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। পর্তুগিজ যুবরাজের হ্যাটট্রিকে অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে জুভেন্টাস। মঙ্গলবার রাতে তাদের সঙ্গে শেষ আটের টিকিট পেয়েছে ম্যানচেস্টার সিটি। ঘরের মাঠে ইংলিশ ক্লাবটি উড়িয়ে দিয়েছে শালকেকে।

চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ষোলোর দ্বিতীয় লেগে ঘরের মাঠে জুভেন্টাস ৩-০ গোলে হারিয়েছে অ্যাতলেতিকোকে। তাতে মাদ্রিদ থেকে প্রথম লেগ ২-০ গোলে হেরে ফিরলেও ৩-২ অগ্রগামিতায় শেষ আট নিশ্চিত করেছে ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়নরা। ঘুরে দাঁড়ানো জয়ে হ্যাটট্রিক করে রোনালদো আরেকবার প্রমাণ করলেন কেন তাকে চ্যাম্পিয়নস লিগের ‘সেরা খেলোয়াড়’ বিবেচনা করা হয়।

ম্যাচের শুরু থেকেই দুর্দান্ত খেলতে থাকা জুভেন্টাস ২৭ মিনিটে প্রথম গোলের দেখা পায়। বাঁ দিক থেকে ফেদেরিকো বের্নারদেস্কির ক্রস থেকে অসাধারণ এক হেডে বল জালে পাঠান পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড রোনালদো। এক গোল হজমের পর বেশ কিছু গোলের সুযোগ পেলেও কাজে লাগাতে পারেনি ডিয়েগো সিমিওনের অ্যাটলেটিকো।

বিরতির পর দ্বিতীয়ার্ধের চতুর্থ মিনিটে নিজের ও দলের ব্যবধান বাড়ান রোনালদো। তার লাফিয়ে নেওয়া হেড ঝাঁপিয়ে ঠেকিয়েছিলেন ইয়ান ওবলাক; কিন্তু তার আগেই বল গোললাইন পেরিয়ে যায়। গোললাইন প্রযুক্তির সাহায্যে গোলের বাঁশি বাজান রেফারি। দুই লেগ মিলিয়ে স্কোরলাইন হয় ২-২।

ম্যাচের বাকি সময়ে জয়সূচক গোলের জন্য মরিয়া হয়ে উঠে দুদলের খেলোয়াড়রা। অতিরিক্ত সময়ে গড়ানোর অপেক্ষা। তখনই অ্যাটলেটিকোর ডি বক্সে ফাউল করে বসেন কোররেয়া। বের্নারদেস্চিকে ধাক্কা দিলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। ম্যাচের ৮৬ মিনিটে জুভেন্টাস সমর্থকদের উত্তেজনা কমিয়ে সফল স্পট কিকে গোল করে সাবেক নগর প্রতিদ্বন্দ্বীদের বিদায় করে দারুণ রোমাঞ্চের গল্প লিখলেন রোনালদো।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের এবারের আসরে এই নিয়ে চার গোল করলেন রোনালদো। ফিলিপ্পো ইনজাগি ও আলেস্সান্দ্রো দেল পিয়েরোর পর জুভেন্টাসের তৃতীয় ফুটবলার হিসেবে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নকআউট পর্বে হ্যাটট্রিক করার কীর্তি গড়লেন রোনালদো।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here