রূপালি ভুবনে তাদের পথচলা। যার সুবাদে মানুষের কাছে তাদের গ্রহণযোগ্যতাও দারুণ। আর সেজন্যই হয়ত শোবিজ তারকাদের রাজনীতির মাঠে দেখা যায়। টালিউড তারকারাও এর ব্যতিক্রম নয়। রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হয়ে সক্রিয় ভূমিকাও রাখছেন অনেকে। তাদের মধ্যে অন্যতম সুপারস্টার দেব। তিনি তৃণমূল পার্টির হয়ে কাজ করছেন অনেক দিন ধরেই। সিনেমার পর্দার পাশাপাশি রাজনীতির মাঠেও এই তারকা সফল।

এদিকে টালিউডের আরও দু’জন তারকা রাজনীতিতে যুক্ত হয়েছেন। তারা হলেন নুসরাত জাহান ও মিমি চক্রবর্তী। কলকাতার সিনেমার জনপ্রিয় এই নায়িকাদ্বয় আগামী লোকসভা নির্বাচনে মমতা ব্যানার্জির তৃণমূল পার্টির হয়ে অংশ নেবেন। এর মধ্যে নুসরাত জাহান নির্বাচন করবেন বসিরহাট এবং মিমি চক্রবর্তী লড়বেন যাদবপুর আসন থেকে।

শোবিজ জগতের মানুষ রাজনীতি বোঝেন না, এমন অভিযোগ তুলে অনেকেই নুসরাত ও মিমির সমালোচনা করছেন। তবে এই বিষয়ে একদমই কর্ণপাত করছেন না মিমি। তিনি বলেন, আমি নিঃশর্ত ভালোবাসায় আস্থা রাখি। মানুষকে ভালোবেসে তাদের উপকারে এলে মানুষ নিশ্চই আমার পাশে থাকবেন। এটা আমার দৃঢ় বিশ্বাস। আর আমি তো কাজ পাগল মানুষ। দলের নির্দেশে কাজ করব। আগেও তো বহু ফিল্মস্টার রাজনীতিতে এসছেন।

মিমির ভাষ্য, ‘দেবকে দেখুন। ঘাটালে ফাটিয়ে কাজ করেছে। ছবি করছে। প্রযোজনা সংস্থায় মন দিয়েছে। চাইলে মানুষ সব পারে। রাজনীতিতে দেব আমার অনুপ্রেরণা।’

মিমি চক্রবর্তী জানান, নুসরাতের সঙ্গে মিলেই তিনি নির্বাচনী প্রচারণা চালাবেন। তিনি বলেন, ‘নুসরাত খুব খুশি। ও চেয়েছিল আমি এই জায়গাটা পাই। আমরা তো প্ল্যান করেই ফেলেছি। ওর এলাকায় ওর হয়ে আমি প্রচারণা করব, আর আমার এলাকায় ও আমার সঙ্গে থাকবে। মজা করে কাজটা করব। আমি নিশ্চিত এই যুদ্ধে আমাদের জয় হবেই।

উল্লেখ্য, আগামী ১১ এপ্রিল পশ্চিমবঙ্গে লোকসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এই নির্বাচন ৭ দফায় হবে। এবারই প্রথম ৭ দফায় নির্বাচন হতে যাচ্ছে। নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা হবে ২৩ মে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here