ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার ঘটনায় বিশ্ব ক্রিকেট অঙ্গনে আলোচনা সমালোচনার ঝড় উঠেছে। বিভিন্ন দেশের প্রাক্তন ও বর্তমান ক্রিকেটাররা এই হামলার নিন্দা জানিয়েছেন, দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

ক্রাইস্টচার্চ মসজিদে বন্দুকধারীর হামলার ঘটনার পরপরই পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার শহীদ আফ্রিদি বাংলাদেশের তামিম ইকবালের সাথে কথা বলে খোঁজ নেন বলে জানান টুইটারে।

ক্রাইস্টচার্চের ঘটনাকে ভয়াবহ উল্লেখ করে আফ্রিদি বলেন, নিউজিল্যান্ডকে অনেক নিরাপদ ও শান্তিপূর্ণ দেশ ভাবেন তিনি। তার মতে, সেখানকার মানুষও বন্ধুত্বপূর্ণ।

‘তামিমের সাথে কথা হলো, বাংলাদেশ ক্রিকেট দল ও স্টাফরা নিরাপদে আছেন এটা স্বস্তিদায়ক। বিশ্বের উচিৎ ঘৃণার বিরুদ্ধে এক হওয়া, সন্ত্রাসীদের কোনো ধর্ম নেই।’ লিখেছেন শহীদ আফ্রিদি।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, যিনি ছিলেন পাকিস্তানের ক্রিকেট দলের বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক, এই হামলার পেছনে মুসলিম বিদ্বেষী মনোভাবকে দায়ী করেন। তিনি নিজের টুইটে বলেন, ‘নাইন ইলেভেনের পর যেকোনো মুসলমানের দ্বারা সংঘটিত সন্ত্রাসী ঘটনার জন্য ইসলাম এবং ১৩০ কোটি মুসলিমদের সমষ্টিগতভাবে দায়ী করা হচ্ছে। মুসলিমদের রাজনৈতিক সংগ্রামকে দানবীয় রূপ দিতে ইচ্ছাকৃতভাবে এটা করা হচ্ছে।’

বাংলাদেশের টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান লিখেছেন, নিউজিল্যান্ডের এই ঘটনা নিয়ে আমার কিছুই বলার নেই। আমি আল্লাহ’র কাছে শুকরিয়া জানাই যে, আমার সতীর্থরা, আমার ভাইয়েরা রক্ষা পেয়েছে।’

‘প্রার্থনার জায়গাতেও কি আমরা সুরক্ষিত নই?’ এমন প্রশ্ন রেখেছেন শোয়েব আখতার।

‘ভিডিওতে যা দেখলাম তাতে আমি হতভম্ব, আমি দৃঢ়ভাবে এই ধরণের সন্ত্রাসী হামলার বিরুদ্ধে’ পাকিস্তানের সাবেক এই গতিতারকা লিখেছেন টুইটারে।

এদিকে ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলিও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে হামলার ঘটনায়।

তিনি লিখেছেন, ‘এই কাপুরুষোচিত হামলায় যারা ভিকটিম তাদের প্রতি আমার সমবেদনা রইলো।’

বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা নিরাপদে থাকুক বলেও শুভকামনা জানিয়েছেন তিনি।

এদিকে আরেক সাবেক পাকিস্তানি শোয়েব আখতার টুইটারে হামলাকারীর প্রতি তীব্র ঘৃণা প্রকাশ করে লিখেছেন, ‘ক্রাইস্টচার্চে মসজিদের মধ্যে সন্ত্রাসী হামলার ছবি দেখলাম। আমি স্তম্ভিত। আমরা কি এখন আমাদের প্রার্থনার জায়গার ভেতরেও নিরাপদ নই? এ ধরনের সন্ত্রাসী হামলার তীব্র প্রতিবাদ জানাই। আমি আনন্দিত, যে বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা নিরাপদ আছে।’

ক্রাইস্টাচার্চে মসজিদে সন্ত্রাসী হামালায় বাংলাদেশ দল নিরাপদে থাকায় স্বস্তি প্রকাশ করেছেন ভারতের জনপ্রিয় ধারাভাষ্যকার হার্শা ভোগলে। এছাড়াও নিহতদের আত্মার শান্তি কামনা করেছেন সাবেক ওয়েস্ট উইন্ডিজ অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি।

অন্য এক টুইটে আইসিসির প্রধান নির্বাহী ডেভ রিচার্ডসন জানিয়েছেন, ‘ক্রাইস্টচার্চে ভয়াবহ হামলায় যে সকল পরিবার ক্ষয়-ক্ষতির শিকার হয়েছে তাঁদের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি। দুই দল, স্টাফ ও ম্যাচ অফিশিয়ালরা নিরাপদে আছেন। টেস্ট ম্যাচ বাতিলের সিদ্ধান্তের প্রতি পূর্ণ সমর্থন রয়েছে আইসিসির।’

ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার কারণে আগামিকাল থেকে শুরু হতে যাওয়া সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টেস্টটি বাতিল করেছে বিসিবি ও নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here