নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের মসজিদ আল নূরে সন্ত্রাসী হামলার পর ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে পড়েছিলেন বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা। তারা যে সামনে থেকেই বিষয়টি দেখেছেন। অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেছেন। তাই তারা আতঙ্কিতও হয়ে পড়েছিলেন। শুক্রবার সন্ত্রাসী হামলার পর শনিবারই দেশে ফিরে এসেছেন ক্রিকেটাররা। রাতে নিরাপদে দেশে ফিরেছেন।

দেশে ফেরার পর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বলেছেন, সবার দোয়ায় আমরা বেঁচে গেছি। আমি এটা বর্ণনা করতে পারব না যে আমরা কিসের মধ্যে এখন আছি।

নিউ জিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ওভালের আল নুর মসজিদে শুক্রবার সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। নৃশংস সেই ঘটনায় ৪৯ জন নিহত হন। এ সময় ঘটনা স্থালের পাশেই অবস্থান করছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট দল।

আক্রান্ত মসজিদেই জুমার নামাজ আদায় করতে যাচ্ছিলেন ক্রিকেটাররা। আর পাঁচ-দশ মিনিট আগে বাংলাদেশ দলকে বহনকারী টিম বাস মসজিদে পৌঁছালেই ঘটে যেতে পারত অন্য কিছু। তাই বলতে গেলে জীবন নিয়ে ফিরেছেন তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিমরা। তবে হামলার শিকার অনেককে রক্তাক্ত হয়ে বেরিয়ে আসতে দেখেছেন টাইগাররা। কাছ থেকে দেখেছেন হামলার ভয়াবহতা।

শনিবার বাংলাদেশ ক্রিকেট দল দেশে ফিরবে বলে আগে থেকেই বিমানবন্দরে ভিড় ছিল সংবাদকর্মীদের। ক্রিকেট দলকে বিমানবন্দরে বরণ করতে উপস্থিত ছিলেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপি, বিসিবির মিডিয়া কমিটির প্রধান জালাল ইসনূসসহ বিসিবির অন্যান্য কর্মকর্তারা।

ক্রিকেটাররা ঢাকায় পৌঁছার পর বিসিবির মিডিয়া কমিটির প্রধান জালাল ইউনূস জানিয়ে দেন কোনো প্রশ্নের উত্তর দেবেন না মাহমুদউল্লাহ। শুধু তার বক্তব্য উপস্থাপন করবেন।

মাহমুদউল্লাহ যখন কথা বলছিলেন, তার চোখে মুখে ভয়ার্ত সেই ঘটনার ছাপ যেন ভেসে উঠছিল।

বিমানবন্দরে মাহমুদউল্লাহ তার বক্তব্যে যা বললেন-

‘‘আমি জানি না কীভাবে শুরু করব। শুধু এতটুকু বলতে চাই যে আমরা খুব ভাগ্যবান, আমরা এখানে এখন আছি… আপনাদের সবার দোয়ায়, দেশবাসীর দোয়ায়, বাবা-মা, পরিবার পরিজন সবার দোয়ায় আছি এখানে।’’

‘‘আমি এটা বর্ণনা করতে পারব না যে আমরা কীসের মধ্যে এখন আছি। আমরা কি দেখেছি, এটা বর্ণনার মতো না। অবশ্যই এই ঘটনাটা অপ্রত্যাশিত। এটা কারোরই কাম্য নয়। আমি ব্যক্তিগতভাবে এবং আমাদের টিমের সবাই সারা রাত ঠিকভাবে ঘুমাতেও পারিনি।’’

‘‘আমরা সবাই যখন রুমের মধ্যে ছিলাম তখন শুধু একটা জিনিসই চিন্তা হচ্ছিল যে আমরা কতটুকু ভাগ্যবান। সবচেয়ে বড় কথা নিউ জিল্যান্ডের মতো দেশে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে এটা খুবই প্রত্যাশিত।’’

‘‘বোর্ডের সঙ্গে (বিসিবি) যোগাযোগ হলো তারা আমাদের ফেরার ব্যবস্থা করলেন। এ জন্য বিসিবিকে ধন্যবাদ। পাপন ভাইকে (বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন) ধন্যবাদ। উনি আমাদের আশ্বস্ত করেছেন যে আমাদের যত দ্রুত সম্ভব দেশে ফিরিয়ে আনবেন। এ জন্য সবাইকে ধন্যবাদ।’’

‘‘দেশবাসীর সবার কাছেই চাওয়া থাকবে তারা যেন আমাদের জন্য দোয়া করেন। আমরা এই মানসিক অবস্থা থেকে যেন তাড়াতাড়ি বের হতে পারি। আর নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডকে ধন্যবাদ। বিসিবিকেও ধন্যবাদ।’’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here