সিরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও উপ প্রধানমন্ত্রী ওয়ালিদ আল-মুয়াল্লেম বলেছেন, নয়া সংবিধান প্রণয়ন সম্পূর্ণভাবে তার দেশের ‘সার্বভৌম বিষয়’ এবং এতে বিশ্বের কাউকে হস্তক্ষেপ করতে দেয়া হবে না। রোববার রাজধানী দামেস্কে জাতিসংঘের সিরিয়া বিষয়ক নয়া বিশেষ প্রতিনিধি গেইর পিডারসেনের সঙ্গে এক বৈঠকে এ সংকল্পের কথা জানান মুয়াল্লেম।

তিনি বলেন, “সংবিধান প্রণয়ন এবং এ সংক্রান্ত অন্যান্য সবকিছু হচ্ছে সিরিয়ার সার্বভৌম বিষয় এবং বিদেশি হস্তক্ষেপ ছাড়াই এসবের ব্যাপারে সিরিয়ার জনগণই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে।”

সিরিয়ায় গত আট বছরের যুদ্ধ ও সহিংসতা শেষে একটি শক্তিশালী রাজনৈতিক প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে দেশটির জন্য নয়া সংবিধান প্রণয়নের কথা বলা হচ্ছে।  গত বছর রাশিয়ার সোচি শহরে এক আন্তর্জাতিক বৈঠকে সিরিয়ার জন্য ১৫০ সদস্যের একটি সংবিধান প্রণয়ন কমিটি গঠনের প্রস্তাব করা হয়। বলা হয়, সিরিয়ার সরকারের পক্ষ থেকে ৫০ জন, বিরোধী দলগুলোর পক্ষ থেকে ৫০ জন এবং জাতিসংঘের পক্ষ থেকে ৫০ জন নিরপেক্ষ প্রতিনিধি এই কমিটিতে থাকবেন।

রোববারের সাক্ষাতে মুয়াল্লেম জাতিসংঘের নয়া প্রতিনিধি পিডারসেনকে সব রকম সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন। গত জানুয়ারি মাসে স্ট্যাফান ডি মিস্তুরার কাছ থেকে দায়িত্ব গ্রহণ করেন নরওয়ের এই কূটনীতিক।

পিডারসেনের সঙ্গে সাক্ষাতে সিরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেন, তার দেশের সংকট সমাধানের যেকোনো উদ্যোগে সন্ত্রাসবাদ নির্মূল ও সিরিয়া থেকে অবৈধ বিদেশি সেনা উপস্থিতি সরিয়ে নেয়ার কথা থাকতে হবে।

সাক্ষাতে পিডারসেন বলেন, জাতিসংঘের ঘোষণা ও নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাবগুলোর ভিত্তিতে রাজনৈতিক উপায়ে সিরিয়ার সংকট সমাধানের সর্বোচ্চ চেষ্টা চালাবে তিনি।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here