বাংলাদেশকে ফাইনালে উঠতে হলে ইতিহাস গড়তে হতো। যে ভারতকে আগে কখনো সিনিয়র পর্যায়ে হারানো যায়নি, সেই দলটির বিপক্ষেই পেতে হতো জয়। ফুটবলে সবই সম্ভব- এই মন্ত্র থেকে প্রেরণা নিয়ে অসাধ্য সাধনের আশায় ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু মাঠের লড়াইয়ে তা হয়নি। ভারতীয় মেয়েদের গতির কাছে হেরে সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের সেমি-ফাইনাল থেকে বিদায় নিতে হয়েছে বাংলাদেশকে।

বুধবার নেপালের বিরাটনগরে প্রথম ১৫ মিনিটও সমান তালেই লড়াই করে গোলাম রব্বানী শিষ্যরা। কিন্তু এরপর সময় যত গড়িয়েছে ততটাই নিজেদের ছন্দ হারিয়ে ফেলে সাবিনা খাতুনরা। যার খেসারতটাও দিয়েছেন তারা বড় ব্যবধানে হেরে। তার মানে দক্ষিণ এশিয়ার বিশ্বখ্যাত এ টুর্নামেন্টে এবার ভারত বাধা টপকাতে পারলোনা বাংলাদেশের মেয়েরা।

নেপালের বিরাটনগরের শহীদ রঙ্গসালা স্টেডিয়ামে বুধবার সাফের দ্বিতীয় সেমি-ফাইনালে ৪-০ গোলে হেরেছে বাংলাদেশ। গতবার ফাইনালে ভারতের কাছে হেরেই রানার্সআপ হয়েছিল গোলাম রব্বানী ছোটনের দল।

বুধবার প্রথমার্ধেই তিন গোলে পেছনে পড়ে বাংলাদেশ। দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ে আরও এক গোলে হজম করে সাফের পঞ্চম আসরের সেমিফাইনাল থেকে ছিটকে পড়েছে গোলাম রব্বানী ছোটনের শিষ্যরা।

যেকোন প্রতিযোগিতা মিলে এখন পর্যন্ত ৯বার ভারতের সঙ্গে দেখা হয়েছে বাংলাদেশের। কিন্তু লাল-সবুজের মেয়েরা ৮বারই হারের মুখ দেখেছে। একবার শুধুমাত্র প্রতিপক্ষের বিপক্ষে ড্র করেছিল দলটি। সেই স্মৃতি নিয়েই বুধবার নেপালের বিরাট নগরে পঞ্চম সাফের দ্বিতীয় সেমিতে নেমেছিল গোলাম রব্বানীর শিষ্যরা।

কিন্তু প্রতিবেশি দেশটির বিপক্ষে প্রথম ১৫ মিনিট ছাড়া আর লাল-সবুজ মেয়েদের খুঁজেই পাওয়া যায়নি। যে কারণে প্রথমার্ধে ৩-০ গোলে পেছনে পড়ে। দ্বিতীয়ার্ধের শেষ দিকে আরেকটি গোল হজম করে বড় ব্যবধানে হেরে বসে তারা। আর তাতে আবারও সাফের শিরোপার স্বপ্নভেঙে গেল গোলাম রব্বানী ছোটনের শিষ্যদের।

আগামী শুক্রবার ফাইনালে ভারত-নেপাল মুখোমুখি হবে। বুধবার প্রথম সেমি-ফাইনালে শ্রীলঙ্কাকে ৪-০ গোলে হারিয়েছে নেপাল।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here