রোহিঙ্গা শরণার্থীদের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিতে বাংলাদেশকে ৫০ মিলিয়ন ডলার দেবে বিশ্বব্যাংক ও কানাডা সরকার। এর মধ্যে ৩৫ মিলিয়ন ডলার চার সংস্থা ও ১৫ মিলিয়ন ডলার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে খরচ করা হবে।

বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, ইউনিসেফ, ইউএনএফপিও, আইএমও এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মধ্যে এ সংক্রান্ত সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়।

এসময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, বিশ্ব ব্যাংক ইতোমধ্যে রোহিঙ্গাদের জন্য দুইশ’ মিলিয়ন ডলার দিয়েছে। তারা আরো ৩০০ মিলিয়ন দেওয়া কথা জানিয়েছে। এছাড়াও আজ চুক্তির মাধমে বিশ্বব্যাংক দিচ্ছে ৪১ দশমিক ৬৭ মিলিয়ন ডলার। আর কানাডা সরকার ৮ দশমিক ৩৩ মিলিয়ন ডলার। সবমিলিয়ে ৫০ মিলিয়ন ডলার দেয়া হচ্ছে। এই ৫০ মিলিয়ন ডলার রোহিঙ্গাদের সাহায্য সহযোগিতার জন্য ব্যবহার করা হবে।

তিনি জানান, ৫০ মিলিয়ন ডলারের মধ্যে ৩৫ মিলিয়ন ডলার চারটি এজেন্সিকে দেওয়া হবে। তারা রোহিঙ্গাদের ঘর-বাড়ি নিমাণ, চিকিৎসা ও অন্যান্য খাতে ব্যয় করা হবে। বাকি অর্থ ব্যয় হবে মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে।

মন্ত্রী বলেন, ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের জন্য ঘর-বাড়ি নির্মাণ করা হচ্ছে। এক লাখ রোহিঙ্গা সেখানে থাকতে পারবেন। সেখানে তাদের জন্য ক্লিনিক করা হবে। আমরা তাদের স্বাস্থ্যসেবার জন্য সব কাজ করে যাচ্ছি।

এসময় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, ইউনিসেফ, ইউএনএফপিএ’র প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

চুক্তি অনুযায়ী, আইওএম ১২ মিলিয়ন ডলার, ইউএনএফপিএ ৯ মিলিয়ন ডলার, ইউনিসেফ ৮ দশমিক ৫ মিলিয়ন ডলার, ডব্লিউএইচও ৫ দশমিক ৫ মিলিয়ন ডলার পাবে। বাকি ১৫ মিলিয়ন ডলার পাবে সরকার।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here