বিশ্বের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ এভারেস্ট জয় করতে গিয়ে অসংখ্য পর্বাতারোহী প্রাণ হারিয়েছেন। বরফেই ঢাকা পড়ে আছে তাদের মরদেহ। তবে এখন হিমালয় পর্বতমালার খুম্বু হিমবাহ গলতে থাকায় বেরিয়ে আসছে বিভিন্ন সময় মারা যাওয়া এমন অসংখ্য পর্বতারোহীর মরদেহ। হিমালয়ের চীনা অংশে এসব মরদেহ সংগ্রহের কাজ শুরু করেছে প্রশাসন।

নেপাল মাউন্টেনিয়ারিং অ্যাসোসিয়েশনের (এনএমএ) তথ্যানুযায়ী, এ পর্যন্ত প্রায় পাঁচ হাজার পর্বতারোহী বিশ্বের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ জয় করতে পেরেছেন। আর বিপদশঙ্কুল মাঝপথে প্রাণ হারিয়েছেন তিন শতাধিক পর্বতারোহী। এদের দুই-তৃতীয়াংশের মরদেহই চাপা পড়ে আছে হিমালয়ের বরফে।

এনএমএর সাবেক প্রধান অং শেরিং শেরপা জানান, বৈশ্বিক উষ্ণতার কারণে দ্রুত গলছে হিমালয়ের বরফের স্তর। ফলে পর্বতের বিভিন্ন অংশে বরফের নিচে দীর্ঘদিন ধরে চাপা পড়ে থাকা মরদেহগুলো এখন বেরিয়ে আসছে।

তিনি বলেন, ‘এখন পর্বতারোহণের মৌসুম চললেও এভারেস্টের বিভিন্ন ক্যাম্প পর্যন্ত মরদেহগুলো বহন করে নিয়ে আসতে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছেন সংশ্লিষ্টরা। এসব মরদেহ উদ্ধারকাজে বেশ বেগ পেতে হয় উদ্ধারকারীদের। আর এতে খরচও পারে প্রায় পর্বত সমান।’

‘এসব দেহের উজন প্রায় দেড়শো কেজির মতো হয়ে থাকে। ফলে এত উচ্চতা থেকে মরদেহগুলো নামাতে বেশ বেগ পেতে হয় উদ্ধারকারীদের। এছাড়া একেকটি মরদেহ নিচে নামিয়ে আনতে খরচও হয় প্রায় ৩৪ লক্ষ টাকা থেকে শুরু করে ৬৭ লক্ষ টাকার মতো।’

অং শেরিং আরও জানান, অনেক পর্বতারোহী মৃত্যুবরণ করলে নিজেদেরকে পাহাড়েই সমাধিস্থ হতে পছন্দ করেন। ফলে তাদের মরদেহ নামানোতে কোনও উদ্যোগ নেয়া হয় না। সূত্র: হিমালয়ান টাইমস

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here