বিশ্বকাপ ব্যর্থতার পর টানা জয়ের মধ্যে ছিল ব্রাজিল। গেল বছর একে একে ছয় ম্যাচ জিতে নিজেদের গুছিয়ে নিয়েছিল পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।

তবে চলতি বছরে নিজেদের প্রথম ম্যাচে নেইমারকে ছাড়া খেলতে নেমে পানামার সঙ্গে জিতল পারল না তিতের দল।

শনিবার পর্তুগালের পর্তোয় ১-১ গোলে ড্র নিয়ে হতাশ হয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে ফিলিপ কৌতিনহোদের।

ফিফা র‍্যাঙ্কিংয়ে তিনে থাকা ব্রাজিল ৭৬ নম্বরে থাকা পানামার সঙ্গে খেলছে মলিন, ছন্দহীন ফুটবল। স্বাভাবিক কারণেই ফল আসেনি নিজেদের পক্ষে।

শনিবার ম্যাচের শুরু থেকেই বলের দখল রাখে ব্রাজিল। সেই সুযোগে অষ্টাদশ মিনিটে প্রথম সুযোগ পেয়েছিল দলটি। ফিলিপে কৌতিনিয়োর দারুণ ক্রসে রবের্তো ফিরমিনোর হেড অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।

পাঁচ মিনিট পর ডি-বক্সের বাইরে থেকে বার্সেলোনা মিডফিল্ডার আর্থার মেলোর কোনাকুনি শট পোস্ট ঘেঁষে চলে যায়।

শেষ পর্যন্ত ৩২তম মিনিটে গোলের দেখা পায় দলটি। ডান দিক থেকে কাসেমিরোর দারুণ এক ক্রস ছোট ডি-বক্সের বাইরে পেয়ে বাঁ পায়ের ভলিতে বল ঠিকানায় পাঠান পাকুয়েতা।

এরফলে জাতীয় দলের হয়ে ২১ বছর বয়সী এসি মিলান মিডফিল্ডারের এটি প্রথম গোল। তবে এর চার মিনিট পরই সেলেসাওদের চমকে দেয় পানামা। মাঝমাঠের কাছ থেকে সতীর্থের ফ্রি-কিকে বল ডি-বক্সে পেয়ে হেডে ম্যানচেস্টার সিটির গোলরক্ষক এদেরসনের মাথার উপর দিয়ে জালে পাঠান আদোলফো মাচাদো।

বিরতির পর এগিয়ে যাওয়ার জন্য প্রাণপন চেষ্টা করে ব্রাজিল। ৫১তম মিনিটে সুযোগও পেয়েছিল দলটি। কিন্তু এ যাত্রায় ভাগ্য সহায়ক হয়নি পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের। সে সময় ফাগনারের ক্রসে রিশার্লিসনের ভলি গোলরক্ষককে পরাস্ত করলেও ক্রসবারে বাধা পায়।

৭১তম মিনিটে কাসেমিরোর হেডও ক্রসবারে লেগে ব্যর্থ হয়। এর দুই মিনিট পর আবারও ব্রাজিলকে হতাশ করেন তিনি। এবার এ মিডফিল্ডারের বাঁকানো ফ্রি-কিক দারুণ দক্ষতায় ঝাঁপিয়ে ঠেকিয়ে দেন পানামা গোলরক্ষক। এদিকে যোগ করা সময়ে সুযোগ পেয়েও কোন দলই জালের দেখা পায়নি।

মঙ্গলবার চেক রিপাবলিকের বিপক্ষে আরেকটি প্রীতি ম্যাচ খেলবে ব্রাজিল। তার আগে পানামার বিপক্ষে ড্র নিশ্চয়ই পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের অস্বস্তি ভোগাচ্ছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here