পুরো সময়ে বল দখলে আধিপত্য। একের পর এক আক্রমণ। তাতেও শঙ্কায় পড়ে গিয়েছিল স্পেন। তবে হার মানেনি। পেনাল্টি থেকে অসাধারণ এক গোলে সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের ইউরো ২০২০ বাছাইয়ে শুভ সূচনা এনে দিলেন সের্হিও রামোস।

ভালেন্সিয়ায় শনিবার রাতে ইউরো বাছাইয়ের ‘এফ’ গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে নরওয়েকে ২-১ গোলে হারায় স্পেন। ব্যবধানটা আরো বেশি হতে পারত। গোলের উদ্দেশে দলটির নেওয়া ২৬টি শটের বেশিরভাগই অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।

শুরু থেকেই নরওয়ের রক্ষণকে চেপে ধরে স্পেন। সে সুবাদে ষোড়শ মিনিটে রদ্রিগোর নৈপুণ্যে এগিয়ে যায় দলটি। বাঁ দিক থেকে জর্দি আলবার ক্রস ছোট ডি-বক্সে পেয়ে বাঁ পায়ের ভলিতে গোলটি করেন ভালেন্সিয়ার এ ফরোয়ার্ড। সমতায় ফেরার দারুণ সুযোগ অবশ্য নরওয়ে পেয়েছিল ৩১তম মিনিটে।

কিন্তু গোলরক্ষক দাভিদ ডি গিয়াকে ফাঁকি দিয়ে গোলমুখে হেনরিকসেন বল বাড়ালেও ঠিকমতো টোকা দিতে ব্যর্থ হন আরেক মিডফিল্ডার মোহামেদ। দুই মিনিট পর পাল্টা আক্রমণে আলভারো মোরাতার হেড দারুণ নৈপুণ্যে গোললাইন থেকে ফেরান অতিথি গোলরক্ষক।

বিরতির পরও বেশিরভাগ সময় বল দখলে রেখে আক্রমণ করতে থাকে স্পেন। কিন্তু ব্যবধান কিছুতেই জালের দেখা পাচ্ছিলো না সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। উল্টো ৬৫তম মিনিটে বোর্নমাউথের ফরোয়ার্ড জসুয়া কিংয়ের সফল স্পট কিকে সমতায় ফেরে নরওয়ে। তবে বেশিক্ষণ সেটা স্থায়ী হতে দেননি রামোস।

ম্যাচের ৭১তম মিনিটে রামোসের স্পট কিকে আবারও এগিয়ে যায় ২০০৮ ও ২০১২ সালের ইউরো চ্যাম্পিয়নরা। এরআগে মোরাতাকে গোলরক্ষক ফাউল করলে পেনাল্টির বাঁশি বাজিয়েছিলেন রেফারি। এরপর আর কোন দল জালের দেখা না পেলে ইউরো-২০২০ বাছাইয়ের শুরুটা দারুণ হয়েছে স্পেনের।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here