বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব শহিদুল হক বলেছেন, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ভাসানচরে স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

বার্তা সংস্থা ইরনা জানিয়েছে,স্বরাষ্ট্র সচিব ওই তথ্য দিয়ে বলেছেন মিয়ানমার থেকে আর  কোনো শরণার্থীকে আশ্রয় দেওয়া বাংলাদেশের পক্ষে সম্ভব নয়।

রোহিঙ্গাদের ফেরত নেয়ার ব্যাপারে মিয়ানমার সরকার ‘অসার প্রতিশ্রুতি’ দিয়েছে বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

গত মাসেও জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদকে জানানো হয়েছে যে মিয়ানমারের আর কোনো রোহিঙ্গা শরণার্থীকে আশ্রয় দিতে পারবে না বাংলাদেশ। বাংলাদেশে মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমান শরণার্থীদের বসবাসযোগ্য পরিবেশ নেই। সেজন্য সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রোহিঙ্গা শরণার্থীদেরকে নোয়াখালী জেলার অদূরে ভাসানচরে স্থানান্তর করা হবে।

২০১৭ সালের ২৫ নভেম্বরে বাংলাদেশ এবং মিয়ানমার রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নিজস্ব বাস্তুভিটা রাখাইনে ফেরার ব্যাপারে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্টে মিয়ানমারের রাখাইনে উগ্র বৌদ্ধ এবং সেনাদের নির্বিচার হামলায় ৬ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা মুসলমান নিহত ৮ হাজারের বেশি আহত এবং ১০ লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়।

জাতিসংঘের তদন্ত কমিটি রাখাইন পরিস্থিতি পর্যালোচনা করেছে। ওই কমিটি তাদের পর্যালোচনা প্রতিবেদনে বলেছে,মিয়ানমারের সেনাবাহিনী রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর গণহত্যা চালিয়েছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here