সারজায় প্রথম ২ ম্যাচের দুই ইনিংসেই সেঞ্চুরি করেছেন ফিঞ্চ। এই অজি ওপেনারের ১১৬ও ১৫৩* রানের ইনিংস দু’টি ব্যবধান গড়ে দিয়েছে দল দু’টির। দুই ম্যাচেই বড় ব্যবধানে জিতেছে অস্ট্রেলিয়া (৮ উইকেটে)।

সিরিজের উত্তেজনা বাঁচিয়ে রাখতে আবুধাবিতে তৃতীয় ম্যাচে জয় ছাড়া বিকল্প পথ খোলা ছিল না পাকিস্তানের। কিন্তু আবারো পাকিস্তানের স্বপ্ন ভঙ্গ করে দিয়েছেন ফিঞ্চ। তার হ্যাটট্রিক সেঞ্চুরির পথে বাধা হয়ে দাঁড়ালেও সিরিজে ফিরতে পারেনি পাকিস্তান।

নাভার্স নাইনটিজে ফিঞ্চ কাঁটা পড়লেও আবুধাবিতে তার ৯০ রানের ইনিংসই গড়ে দিয়েছে ব্যবধান। ৮০ রানের বিশাল ব্যবধানে জিতে ৩-০তে এগিয়ে ২ ম্যাচ হাতে রেখে সিরিজ জয়ের উৎসব করেছে অস্ট্রেলিয়া। ২০০২ সাল থেকে দু’দলের দ্বি-পাক্ষিক ওয়ানডে সিরিজে হারের মুখ দেখেনি অস্ট্রেলিয়া। টানা ৬ষ্ঠ সিরিজ জিতে সেই অতীতের দেখানো পথেই হাটঁলো এবারো।

আবু ধাবিতে বুধবার রাতে পাকিস্তানকে ৮০ রানে হারায় অস্ট্রেলিয়া। ২৬৭ রানের জবাবে ১৮৬ রানে গুঁড়িয়ে যায় শোয়েব মালিকের দল। এই জয়ে দুই ম্যাচ হাতে রেখেই পাঁচ ম্যাচের সিরিজটি নিজেদের করে নিয়েছে অজিরা।

শেষ জায়েদ স্টেডিয়ামে নির্ধারিত ওভার শেষে ৬ উইকেটে ২৬৬ রান করে টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নামা অস্ট্রেলিয়া।

দলীয় ২০ রানেই উসমান খাওয়াজা ও শন মার্শকে হারালেও খেই হারায়নি তারা। দলকে টেনে নিয়ে যান ওপেনার অ্যারন ফিঞ্চ। তৃতীয় উইকেটে পিটার হ্যান্ডসকমের (৪৭) সঙ্গে ৮৪, মার্কাস স্টয়নিসের (১০) সঙ্গে ৩৬, গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের (৭১) সঙ্গে ৪৮ রানের জুটি গড়েন অজি অধিনায়ক।

দলীয় ১৮৮ রানে উইকেট ছাড়া হন ফিঞ্চ। এর আগে ১৩৬ বলে পাঁচ চার ও এক ছক্কায় খেলেন ৯০ রানের ইনিংস।

পাকিস্তানের বোলারদের মধ্যে একটি করে উইকেট নেন উসমান শিনওয়ারি, জুনায়েদ খান, ইয়াসির শাহ, ইমাদ ওয়াসিম ও হারিস সোহেল।

জবাবে দলীয় ১৬ রানেই শান মাসুদ, হারিস সোহেল ও মোহাম্মদ রিজওয়ানকে হারিয়ে মারাত্মক ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে যায় পাকিস্তান। এই তিন ব্যাটসম্যানই শিকার কামিন্সের।

এই বিপর্যয় আর কাটিয়ে তুলতে পারেনি তারা। শেষ দিকে লেগ স্পিনার জাম্পার নৈপুণ্যে নির্ধারিত ওভারের ৩২ বল আগেই গুটিয়ে যেতে হয় তাদের। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৪৬ রান করেন ইমাম-উল-হক।

অন্যদের মধ্যে শোয়েব মালিক ৩১, উমর আকমল ৩৬ ও ইমাদ ওয়াসিম ৪৩ রান করেন।

অস্ট্রেলিয়ার বোলারদের মধ্যে জাম্পা ৪৩ রানের খরচায় নেন চার উইকেট। ২৩ রানে তিন উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরা কামিন্স।

দুবাই ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শুক্রবার হবে সিরিজের চতুর্থ ওয়ানডে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here