রাজধানীর বনানীতে কামাল আতাতুর্ক এভিনিউয়ের বহুতল ভবন এফআর টাওয়ারের ভয়াবহ আগুনে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১৯ জনে দাঁড়িয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার পর ঘটনাস্থলে ১৩ জনের লাশ পাওয়া যায়।

এর আগে দুপুর পৌনে ১টার দিকে ২২ তলা ভবনটিতে আগুন লাগে।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সিনিয়র স্টেশন অফিসার খুরশিদ আনোয়ার বলেন, ঘটনাস্থল থেকে ১৩টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। সেই সাথে ইউনাইটেড হাসপাতালে তিনজন, ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে দুজন ও কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে একজন মারা গেছেন।

আহতদের মধ্যে ৪১ জনকে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে, ২৩ জনকে ইউনাইটেড হাসপাতালে, চারজনকে ঢামেক হাসপাতালে ও বাকিদের অন্যান্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আগুন লাগার এ ঘটনা তদন্তে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছে।

ইউনাইটেড হাসপাতালের জনসংযোগ কর্মকর্তা সাজ্জাদুর রহমান বলেন, ঘটনাস্থল থেকে হাসপাতালে আনা তিনজনকে মৃত ঘোষণা করা হয়েছে। তারা হলেন- মনির (৫০), মামুন (৩৬) ও মাকসুদুর (৩২)।

বনানী ক্লিনিকের কাস্টমার কেয়ার কর্মকর্তা সৌমেন হালদার নিশ্চিত করেছেন যে এফআর টাওয়ারের আগুনে তাদের ক্লিনিকে পারভেজ আহমেদ (৫৫) নামে একজন মারা গেছেন।

কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন জানান, নিরাশ চন্দ্র নামে এক শ্রীলঙ্কান নাগরিককে হাসপাতালে আনার পর মৃত ঘোষণা করা হয়েছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ বাচ্চু মিয়া জানান, আব্দুল্লাহ আল ফারুক নামে একজনকে ঘটনাস্থল থেকে হাসপাতালে আনার পর মারা গেছেন।

এফআর টাওয়ারে দুপুর পৌনে ১টার দিকে আগুন লাগে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ২০টি ইউনিট ঘটনাস্থলে ছুটে যায়। তারা বিকাল পৌনে ৫টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে বলে ফায়ার সার্ভিস নিয়ন্ত্রণ কক্ষের দায়িত্বরত কর্মকর্তা রাসেল জানিয়েছেন।

জ্বলন্ত ভবনটিতে আটকা পড়া অনেকে আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে বিভিন্ন তলা থেকে নিচে লাফিয়ে পড়ে আহত হয়েছেন। সেই সাথে অনেকে ধোঁয়ার কারণে অসুস্থ হয়ে পড়েন।

এফআর টাওয়ারের আশপাশের ভবনের বাসিন্দারা সরে পড়েছেন।

আগুন নেভাতে ও উদ্ধার কাজে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের সহায়তা দেয় বিমান বাহিনীর তিনটি হেলিকপ্টার। সেই সাথে ছিল সেনা ও নৌ বাহিনীর ফায়ার টিম।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা পাশের আহমেদ টাওয়ারের গ্রিল কেটে ২০ জনকে উদ্ধার করেছে। সেই সাথে জ্বলন্ত ভবনটি থেকে গ্লাস ভেঙে অনেককে উদ্ধার করা হয়েছে। সেখানে অনেকে আশ্রয়ের জন্য ছাদে গিয়ে আটকা পড়েছিলেন। সেখান থেকে হেলিকপ্টারে করে প্রায় ২০ জনকে উদ্ধার করা হয়।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here