মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও আবার ইরানের বিরুদ্ধে নিজের ভিত্তিহীন অভিযোগ ও দাবিগুলোর পুনরাবৃত্তি করেছেন। তিনি সোমবার টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের এ এন্ড এম বিশ্ববিদ্যালয়ে দেয়া এক বক্তৃতায় ‘সন্ত্রাসবাদে সমর্থন’ ও ‘মধ্যপ্রাচ্যসহ গোটা বিশ্বে নাশকতামূলক তৎপরতা’ চালানোর দায়ে ইরানকে অভিযুক্ত করেন।

পম্পেও বলেন, ইরানের আচরণে তার ভাষায় পরিবর্তন আনার জন্য তেহরানের ওপর ‘সর্বোচ্চ চাপ’ প্রয়োগ করে যাবে ওয়াশিংটন। ইরানের কথিত নাশকতামূলক তৎপরতা প্রতিহত করার জন্য দেশটির ওপর প্রবল চাপ প্রয়োগ করছে বলে দাবি করেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

মাইক পম্পেও এর আগেও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে সুর মিলিয়ে ইরানকে সন্ত্রাসবাদে সমর্থন দেয়ার জন্য অভিযুক্ত করেছিলেন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট গত বছরের মে মাসে ইরানের পরমাণু সমঝোতা থেকে তার দেশকে বের করে নিয়ে তেহরানের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞাগুলো পুনর্বহাল করেন। ওয়াশিংটন মনে করছে, নিষেধাজ্ঞা আরোপ ও চাপ প্রয়োগ করে তেহরানকে মার্কিন সরকারের অনুগত হতে বাধ্য করা যাবে।

কিন্তু ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ী গত ৯ জানুয়ারি এক জনসমাবেশে বলেছেন, মার্কিনীরা সন্তুষ্টচিত্তে দাবি করছে তারা এবার ইরানের ওপর নজিরবিহীন চাপ প্রয়োগ করেছে। কিন্তু তারা জানে না, ইরানি জনগণ এই নিষেধাজ্ঞাকে এমনভাবে ব্যর্থ করে দেবে ইতিহাসে যার কোনো নজির নেই। এ ছাড়া, ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ বলেছেন, তার দেশের জনগণ কখনো কারো অন্যায় চাপের কাছে নতি স্বীকার করে না।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here