চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতেই বাংলাদেশ টের পেয়েছে ইংল্যান্ডের উইকেট কতটা ব্যাটিং বান্ধব। বিশ্বকাপের উইকেটের ধরন-ধারণও যে হবে তেমন, সেটাও অনুমেয়। তাই হয়ত দেখা যাবে বেশিরভাগ ম্যাচই হচ্ছে বড় রানের। তবে বাংলাদেশের পেস বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশ মনে করছেন তবু বোলাররাই গড়বেন ব্যবধান, জেতাবেন ম্যাচ। আর সেজন্য কিছু কৌশল ঠিক করেছেন তিনি।

সোমবার বিশ্বকাপের আনুষ্ঠানিক ক্যাম্প শুরু করেছে বাংলাদেশ। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের ব্যস্ততা থাকায় প্রথম দিনে ছিলেন কেবল পাঁচজন। দুদিন আগে বাংলাদেশে এসে ক্যাম্প যোগ দিলেও এখন পেসারদের নিয়ে কাজ শুরু করেননি ওয়ালশ।

তবে তার আগে বিশ্বকাপে কেমন কৌশল নিয়ে তার বোলাররা নামবেন, তার একটা ধারনা দিয়েছেন তিনি। ক্যারিয়ারে বহুবার ইংলিশ কন্ডিশনে খেলার অভিজ্ঞতা আছে ওয়ালশের। তবে সেই সময় আর এই সময়ের মধ্যে আছে বিস্তর ফারাক, বর্তমান পরিস্থিতিতে তাই রণকৌশল কেমন হওয়া উচিত তা নিয়ে আছে ওয়ালশের ভাবনা, ‘আমি যখন খেলতাম তখন কঠিন ছিল। তখন উইকেট ছিল বোলিং বান্ধব, সিম অনেক বেশি ছিল। এখন উইকেট ব্যাটিং বান্ধব হয়ে গেছে। এখন অনেক রানের খেলা হয়। কাজেই আপনার বৈচিত্র্য নিয়ে কাজ করতে হবে। ব্যাটসম্যানকে আটকে রাখতে হবে। ভিন্ন ভাবে চিন্তা করতে বাধ্য করতে হবে। সব সময় ব্যাটসম্যানের চেয়ে এক ধাপ এগিয়ে ভাবতে হবে।’

‘ওয়াইড ইয়র্কার, স্টাম্প বরাবর বোলিং, স্লোয়ার বাউন্সার এই ধরনের যা কিছু পারেন সব কিছুই হয়তো আপনার ব্যবহার করতে হবে। আমার মনে হয় আয়ারল্যান্ডের ক্যাম্পে এটাই থাকবে আমাদের আলোচনায়।’

ওয়ালশের মতে কেবল উইকেটের ধরণই না, বোলারদের কৌশল ঠিক করতে হবে কন্ডিশন আবহাওয়া পড়েও, ‘আমরা যে কন্ডিশন আর যে উইকেটে খেলব তা ঠিকভাবে পড়তে পারতে হবে। কোথাও অন্য জায়গার চেয়ে বল বেশি সুইং করতে পারে। সেখানে যাওয়ার পর আমাদের পরিস্থিতি দেখতে হবে। বেশিরভাগ উইকেট হয়তো ফ্ল্যাট হবে। আমাদের নিজেদের বৈচিত্র্য ও সেটার প্রয়োগ নিয়ে কাজ করতে হবে।’

ইংল্যান্ডের মাঠে সব মিলিয়েই বাংলাদেশের পেসারদের ওয়ানডে রেকর্ড খুবই নাজুক। এখনো কোন পেসার সেখানে চার বা পাঁচ উইকেট পাননি। এমনিতে আইসিসি ইভেন্ট, তারমধ্যে ইংল্যান্ডে গ্রীষ্মে মিলে পাটা উইকেট। দলে থাকা বোলারদের মধ্যে কার দক্ষতা কি, সেটা হিসেব করে তাই কাজ করতে চান ওয়ালশ,  আর সেটা করতে পারলে বোলাররাই ম্যাচ জেতাবে বলে বিশ্বাস তার,  ‘ইংল্যান্ডের উইকেট সাধারণভাবে ফ্ল্যাট। আমাদের সেখানে বৈচিত্র্য ব্যবহার করতে হবে। ধারাবাবাহিক হতে হবে। আমাদের যে ধরনের বোলার আছে দেখতে হবে সেখানে কোন পরিকল্পনা সবচেয়ে কার্যকরী। সম্ভবত সেখানে বড় রানের ম্যাচ হবে। আমার মনে হয়, যে দল বোলিংয়ে ভালো করবে ওরাই জিতবে।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here