ত্রিদেশীয় সিরিজের আগে নিজেদের ঝালিয়ে নেওয়ার প্রস্তুতি ম্যাচে বাংলাদেশের জয়ের জন্য দরকার ছিল ৩০৮ রান। জয়-পরাজয় এই ম্যাচে মূখ্য নয়। তবে, পরাজয়ের ‘অস্বস্তি’ নিয়ে মূল সিরিজে মাঠে নামবে মাশরাফির দল। প্রস্তুতি ম্যাচে আয়ারল্যান্ড উলভস (আয়ারল্যান্ড ‘এ’ দল) দলের বিপক্ষে বাংলাদেশ হেরেছে ৮৮ রানের ব্যবধানে।

ডাবলিনে শুরুতে ব্যাট করে আয়ারল্যান্ড ‘এ’ তোলে ৮ উইকেটে ৩০৭ রানের বিশাল পুঁজি। জবাব দিতে নেমে এই ম্যাচে অধিনায়কত্ব করা সাকিব আল হাসানের সতীর্থরা অলআউট হয়ে গেছে ২১৯ রানে। হারটি ৮৮ রানের বড় ব্যবধানে।

দুয়ারে হাজির বিশ্বকাপের জন্য আদর্শ প্রস্তুতির মঞ্চ ধরা হচ্ছে প্রায় এক্ই কন্ডিশনের আয়ারল্যান্ডকে। সেখানে ত্রিদেশীয় লড়াই। বিশ্বকাপ তো আরও কিছুটা সামনে। সাকিবরা সেখানে হারলেন ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রস্তুতি ম্যাচেই।

ত্রিদেশীয় সিরিজ শুরু হয়ে গেছে রোববার। প্রথম ম্যাচে স্বাগতিক আয়ারল্যান্ডকে বিধ্বস্ত করে পৌনে চারশ রানের পুঁজি গড়ার পর ১৯৬ রানের জয় তুলে নিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

সেখানে তিনশ পেরোনো রানের জবাব দিতে নেমে বাংলাদেশ টেনেটুনে কেবল দুশই পার করতে পারল। তামিম ও লিটন ৫৬ রানের জুটিতে ভালোই শুরু করেছিলেন। দুজনেই বিশের কোটা পার করে সাজঘরে হাঁটা দেন।

তামিম ৩ চারে ৩৩ বলে ২১, আর লিটন ২ চার ও এক ছক্কায় ৩৯ বলে ২৬ করে আউট হন। তিনে নামা অধিনায়ক সাকিব বলের মতো ব্যাটেও জ্বলেছেন। ইনিংসে কেবল তারই নামের পাশে বলার মতো একটা ফিফটি। ৭ চার ও এক ছয়ে ৪৩ বলে ৫৪ রানে থেমেছে সেটা।

বাকিদের কেবল আসা-যাওয়ার মিছিল। মুশফিক ১১, মিঠুন ১৩, সাব্বির শূন্য, মিরাজ ৬, ফরহাদ রেজা ১৫, ব্যর্থতার দীর্ঘ সারি যেন। এরমাঝে মাহমুদউল্লাহর ৩৭-ই যা একটু দৃশ্যমান। তবে মান বাঁচাতে যথেষ্ট ছিল না সেটিও।

আইরিশরা উইকেট ভাগ করে নিয়েছেন। সিমি সিং ৪টি নিয়ে সেরা। বাকিদের মধ্যে কেন ২টি ও একটি করে উইকেট নিয়েছেন ইয়ং, চেজ, গেটকেট।

আগে দ্য হিলস পার্কে আয়ারল্যান্ড উলভস টস জিতে ব্যটিংয়ে নামে। ৭মে উইন্ডিজের বিপক্ষে নামার আগে বাংলাদেশের বোলারদের হাতের মরচে ঝেড়ে ফেলার ছিল ভালো সুযোগ। স্বাগতিকরা সেখানে ব্যাট করল দাপটেই।

বিশ্বকাপ দলে না থাকলেও আয়ারল্যান্ড সফরের দলে আছেন তাসকিন আহমেদ ও ফরহাদ রেজা। দুজনেই খেলেছেন প্রস্তুতি ম্যাচে। ফরহাদ পুরো ১০ ওভার বল করেছেন, শেন গ্যাটকাটের উইকেট পেলেও রান দিয়েছেন ৬৬! তাসকিনও দিয়েছেন একই রান, কিন্তু তার নামের পাশে আছে ৩ উইকেট। ৯ ওভার বল করে ৬৩ রানে ২ উইকেট পেয়েছেন আরেক পেসার রুবেল হোসেন।

উইকেট একটি পেলেও সবচেয়ে কিপ্টে বল করেছেন সাকিব আল হাসান। ১০ ওভারে মাত্র ৩০ রান দিয়েছেন বাঁহাতি অলরাউন্ডার।

আয়ারল্যান্ড উলভসের সেরা ব্যাটসম্যান জেমস ম্যাককলাম। রুবেল হোসেনের বলে সাজঘরে ফেরার আগে করেছেন ১০২ রান। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৯১ রান এসেছে সিমি সিংয়ের ব্যাট থেকে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here