গত বছর গতিসীমা লঙ্ঘন করে দ্রুতবেগে গাড়ি চালিয়ে লাইসেন্সের ওপর শাস্তিমূলক ছয় পয়েন্ট যোগ করেছিলেন যুক্তরাজ্যের জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক ডেভিড বেকহ্যাম।

এবার গাড়ি চালানো অবস্থায় মোবাইল ফোন ব্যবহারের কারণে আদলতের দ্বারস্থ হতে হয়েছে তাকে। আদালতের কাছে নিজের দোষ স্বীকারও করেছেন এই সাবেক ফুটবল তারকা।

বেকহ্যামের বিরুদ্ধে আদালতের নির্দেশ, ছয় মাস গাড়ি চালাতে পারবেন না তিনি। এ ছাড়া ৭৫০ পাউন্ড জরিমানা করা হয়েছে তার। এমনকি তার বিচারে আদালতের যে খরচ হয়েছে সেই বাবদ আরও ১৭৫ পাউন্ড দিতে বলা হয়েছে তাকে।

গত বছরের নভেম্বর মাসে লন্ডনে গাড়ি চালানোর সময় বেকহ্যাম ফোন ব্যবহার করছেন এমন ছবি তুলে সোশ্যাল মিডিয়া ও দেশটির আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে দিয়েছিলেন কেউ।

ছবিতে দেখা গেছে, হাঁটুর ওপরে মোবাইল ফোন রেখে সেটিতে মনযোগী হয়ে কাজ করছিলেন তিনি।

আদালতে বেকহ্যামের পক্ষের আইনজীবী জেরার্ড টাইরেল জানান, সেদিন রাস্তায় প্রচণ্ড ট্রাফিক ছিল। গাড়ি থেমে থেকে এগোচ্ছিল। খুব ধীর গতির রাস্তায় ফোন ব্যবহার করেছিলেন ডেভিড। আইনজীবীর এমন যুক্তি আদালতে গ্রহণ হয়নি।

আদালতের যুক্তি, রাস্তার দিকে মনোযোগের দেয়ার বদলে সেদিন বেকহ্যাম নিজের কোলের দিকে তাকিয়েছিলেন। যে কারণে দুর্ঘটনা ঘটতে পারত। দেশটির একজন গুরুত্বপূর্ণ ‘রোল মডেল’ বেকহ্যাম। যার কাছ থেকে এমন আচরণ কখনই কাম্য নয়।

তবে বেকহ্যামের আইনজীবীর বলেন, বেকহ্যাম নিয়মিত তার সন্তানদের স্কুলে আনা-নেয়া করেন। আদালতের এমন নিষেধাজ্ঞায় তার সন্তানদের বঞ্চিত করা হল।

প্রসঙ্গত ব্রিটেনে গাড়ি চালানো অবস্থায় মোবাইল ফোন ব্যবহার করা শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

জরিপে প্রকাশ, ২০১৭ সালে দেশটিতে গাড়ি চালানোর সময় মোবাইল ফোন ব্যবহারের জন্য ৮ হাজারের বেশি লোককে সাজা দেয়া হয়েছে।ে ২০১০ সালে এর সংখ্যা ছিল ৩২ হাজারের বেশি। সাজার পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়ার পর এর সংখ্যা ধীরে ধীরে কমছে বলে অভিমত দিয়েছেন আদালত।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here