ইরানের শান্তিপূর্ণ পরমাণু কর্মসূচির বিষয়টি জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে পাঠানো হলে তেহরান পাশ্চাত্যের সঙ্গে স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যেতে পারে। ইরানের আণবিক শক্তি সংস্থার মুখপাত্র বেহরুজ কামালবান্দি প্রেসটিভি’কে দেয়া এক বিশেষ সাক্ষাৎকারে এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন।

মার্কিন সরকার ইরানের পরমাণু কর্মসূচির বিষয়টি নিরাপত্তা পরিষদে ফিরিয়ে নিলে তেহরান কি পদক্ষেপ নেবে এমন এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ হুমকি দেন। কামালবান্দি বলেন, সেক্ষেত্রে ইরান নিজের অধিকার রক্ষার লক্ষ্যে কঠিন ও চূড়ান্ত পদক্ষেপ নেবে। তিনি বলেন, ইরান সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়ার পথ খোলা রেখেছে। পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়া, পরমাণু অস্ত্র বিস্তার রোধ  চুক্তি- এনপিটি স্থগিত করা’সহ তেহরানের পক্ষ থেকে যেকোনো পদক্ষেপ নেয়া হতে পারে। ইরানের নীতি নিধারণী কর্মকর্তারা সময়মতো এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন বলে কামালবান্দি জানান।

তিনি বলেন, পাশ্চাত্য যদি ইরানের পরমাণু ইস্যুতে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে ফিরিয়ে নেয় তাহলে তার অর্থ হবে তারা পরমাণু সমঝোতাকে ধ্বংস করে ফেলেছে। সেক্ষেত্রে ইরানের পক্ষ থেকে এটিতে অটল থাকার কোনো অর্থ থাকবে না।

২০১৫ সালে ছয় বিশ্বশক্তি ইরানের সঙ্গে পরমাণু সমঝোতা সই করার আগে আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থা বা আইএইএ থেকে ইরানের পরমাণু ইস্যুকে নিরাপত্তা পরিষদে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। এরপর নিরাপত্তা পরিষদের পক্ষ থেকে একের পর এক ইরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। তবে পরমাণু সমঝোতা সই হওয়ার পর ইরানের পরমাণু ইস্যুকে আবার আইএইএ’তে ফেরত পাঠানো হয় এবং জাতিসংঘের পক্ষ থেকে আরোপিত নিষেধাজ্ঞাগুলো তুলে নেয়া হয়।

তবে মার্কিন সরকার ২০১৮ সালে এই সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর থেকে একতরফাভাবে ইরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যাচ্ছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here