রাজধানী ঢাকার ওয়াসার পানির ১০৬৪টি নমুনা পরীক্ষা করতে ৭৬ লাখ টাকা প্রয়োজন বলে জানিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

বুধবার হাইকোর্টে দেওয়া এক প্রতিবেদনে এ কথা জানায় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

এর আগে গত সোমবার শুনানিতে আদালতের নির্দেশের পরও ঢাকা ওয়াসার কোন কোন এলাকার পানি সবচেয়ে বেশি অনিরাপদ তা পরীক্ষা করে প্রতিবেদন না দেওয়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করেন হাইকোর্ট। সেই সঙ্গে ঢাকা ওয়াসার পানি পরীক্ষায় যে অর্থ খরচ হবে, তা নির্ধারণ করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়কে বুধবারের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়।

ওই দিন আদালত অসন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, ঢাকা ওয়াসার ১১টি পানির জোন রয়েছে। প্রত্যেকটি থেকে ২ বোতল পানি নিয়েই তো পরীক্ষা করা যায়। কিন্তু কোনো কথাই শুনছে না স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। তারা (স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়) আমাদের হাইকোর্ট দেখাচ্ছে।

এদিকে শুনানিকালে পানি পরীক্ষার প্রতিবেদন দাখিলের পরিবর্তে হাইকোর্টে একটি অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

প্রতিবেদনে পানি পরীক্ষায় কমিটি গঠন ও কমিটির কার্যপরিধি তুলে ধরা হয়। পাশাপাশি ওয়াসাকে ১১টি জোনে ভাগ করে পানি পরীক্ষার কথা বলা হয়।

এ ছাড়া অর্থায়ন পাওয়া গেলে চার মাসের মধ্যে পানি পরীক্ষার প্রতিবেদন পাওয়া যেতে পারে বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

এরপর আদালত কোন কোন এলাকার পানি বেশি দূষিত ও অনিরাপদ সেসব এলাকা চিহ্নিত করে জানানোর নির্দেশ দেন। ওয়াসা বা রাষ্ট্রীয় কোনো প্রতিষ্ঠানের কোনো তথ্য না দিলেও রিটকারী আইনজীবী নিজেই এমন একটি তালিকাসংবলিত তথ্য আদালতে জমা দেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here