স্প্যানিশ লা লিগায় নিজেদের শেষ ম্যাচটি ড্রতে শেষ করল লিওনেল মেসির বার্সেলোনা। অন্যদিকে ইতালিয়ান সেরি আ’য় ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর জুভেন্টাসের শেষ ম্যাচের ফলাফলও ছিল একই, ড্র! মৌসুমের শেষটা ড্রতেই শেষ করল ফুটবল বিশ্বের এই দুই জাদুকর! তবে মৌসুমটা জয় দিয়ে শেষ করতে না পারলেও ঘরোয়া লিগের শিরোপা জিতেছে তারা।

রবিবার মধ্যে রাতে আগেই শিরোপা নিশ্চিত করা জুভেন্টাস আতালান্তার বিপক্ষে নিজেদের শেষ ম্যাচটি ১-১ গোলে শেষ করে। অন্যদিকে, লা লিগা চ্যাম্পিয়ন মেসির বার্সেলোনা নিজেদের শেষ ম্যাচটি গেতাফের বিপক্ষে ২-২ গোলে শেষ করে! এভাবে হয়ত দুজনেই কেউই চিন্তা করেনি যে, ড্রয়ে মৌসুম শেষ করবে তারা।

ঘরের মাঠে রোববার প্রথমেই এগিয়ে যাওয়ার দারুণ শুরু নষ্ট করে জুভেন্টাস। পেনাল্টি স্পটের কাছে ফাঁকায় বল পেয়ে উড়িয়ে মেরে হতাশ করেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। অষ্টম মিনিটে ডাচ ডিফেন্ডার হান্স হাতেবুরের শট পোস্টে লাগলে বেঁচে যায় স্বাগতিকরা। তবে ঠিকই ৩৩তম মিনিটে গোল হজম করতে হয় তুরিনের ক্লাবটির। ডান দিক থেকে সতীর্থের বাড়ানো ক্রস দূরের পোস্টে পেয়ে টোকায় জাল খুঁজে নেন বসনিয়ার মিডফিল্ডার ইয়োসিপ ইলিচিচ।

বিরতির আগে সমতায় ফেরার দারুণ সুযোগ নষ্ট করেন রোনালদো। যে কারণে তিনি রেগে যান। শুধু তাই রেফারির সঙ্গে তর্কেও জড়িয়ে পড়েন। ফল হিসেবে সাবেক রিয়াল মাদ্রিদ তারকা দেখেন হলুদ কার্ড।

বিরতির পর সমতায় ফেরার জোর চেষ্টা চালায় জুভেন্টাস। কিন্তু ম্যাচের ৭১তম মিনিটে স্বাগতিক উল্টো পড়েছিল গোল হজম শঙ্কায়। যদিও এ যাত্রায় দলটিকে বাঁচিয়ে দেন গোলরক্ষক ভয়চেখ স্ট্যাসনি। ইলিচিচের ফ্রি-কিকে বল ব্লেইস মাতুইদির মাথায় লেগে জালে ঢুকতে যাচ্ছিল। শেষ মুহূর্তে স্বাগতিক গোলরক্ষককর্নারের বিনিময়ে ঠেকিয়ে দেন। এর ৯ মিনিট পর মানজুকিচের দারুণ এক গোলে সমতায় ফেরে জুভেন্টাস। হুয়ান কুয়াদরাদোর উঁচু করে বাড়ানো বলে বাইলাইনে ঝাঁপিয়ে টোকা দেন আন্দ্রেয়া বারজাগলির বদলি নামা ক্রোয়াট ফরোয়ার্ড। বল গোলরক্ষকের পায়ে লেগে দূরের পোস্ট ছুঁয়ে ভিতরে ঢোকে। বাকি সময়ে আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণ চললেও পার্থক্য গড়ে দিতে পারেনি কেউ। যে কারণে ১-১ গোলের ড্র নিয়েই সিরি ‘আ’-এর টানা আটবার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার আনন্দে মাতেন।

এ জয়ে ৩৭ ম্যাচে ২৮ জয় ও ছয় ড্রয়ে ৯০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে থাকল জুভেন্টাস। আগামী রোববার শেষ রাউন্ডে সাম্পদোরিয়ার মাঠে খেলতে যাবে প্রতিযোগিতার সফলতম দলটি। নাপোলি ৭৯ পয়েন্ট নিয়ে আছে দ্বিতীয় স্থানে। আতালান্তা ৬৬ পয়েন্ট নিয়ে আছে তৃতীয় স্থানে। সমান পয়েন্ট নিয়ে চার নম্বরে ইন্টার মিলান।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here