সুযোগ থাকলে অন্য দলের কোন একজনকে দলে নিতে চাইতেন, এমন প্রশ্ন করা হয়েছিল বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া দশ দলের অধিনায়ককে উদ্দেশ করেই। তাতে অনেকেই হেঁটেছেন কূটনৈতিক পথে, কেউ দিয়েছেন সোজাসাপ্টা উত্তর, কেউ এড়িয়ে গেছেন। তবে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাশরাফি মর্তুজা রাখঢাক না করেই ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে চাওয়ার কথা জানালেন।

বৃহস্পতিবার লন্ডনের দ্য ফিল্ম শেডে দশ অধিনায়ককে নিয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে আইসিসি। তাতে উপস্থিত সাংবাদিকদের নানান প্রশ্নের উত্তর দেন তারা। বিশ্বকাপ নিয়ে হালকা মেজাজে চলে আলোচনা।

এক পর্যায়ে এক সাংবাদিক প্রশ্ন করেন, অন্য দলের একজন কাউকে নেওয়ার সুযোগ থাকলে কাকে নিতেন তারা। উত্তর ইংলিশ অধিনায়ক ইয়ন মরগ্যান বলেন, তার দলে তিনি কোন পরিবর্তনই আনতে চান না। তবে সুযোগ থাকলে রিকি পন্টিংকে কোচ হিসেবে চাইতেন।

বিরাট কোহলি উত্তর দিতে কিছুটা ভাবনায় পড়ে যান। তবে পরে দিয়েছেন স্পষ্ট উত্তর, ‘খুব কঠিন প্রশ্ন। আমরা এমনিতেই শক্তিশালী দল। আমি এবিডি ভিলিয়ার্সকে নিতাম, কিন্তু সে তো অবসর নিয়ে নিয়েছে। কাজেই আমি ফাফ (ডু প্লেসি)কে দলে নিতাম।’

পাকিস্তান অধিনায়ক এক কথায় সেরেছেন উত্তর- ‘জস বাটলার।’ ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক জেসন হোল্ডার আর আফগানিস্তান অধিনায়ক গুলবদিন নাইব প্যাচিয়ে প্রশ্নটা এড়িয়ে গেছেন। এরপরই আসে বাংলাদেশ অধিনায়কের পালা।

বিরাট কোহলির দিকে আঙুল তাক করে মাশরাফি সোজাসাপ্টা বলেন- ‘দ্যাট গাই, বিরাট’।

অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ প্রোটিয়া পেসার কাগিসো রাবাদাকে তার দলে চাওয়ার কথা জানান। ফাফ ডু প্লেসিকে কোহলি চাইলেও ডু প্লেসি কেবল একজনকেই চান নি। দিয়েছেন লম্বা তালিকা। ভারতীয় পেসার জাসপ্রিত বোমরাহ, আফগান স্পিনার রশিদ খান, অসি পেসার প্যাট কামিন্সকে পছন্দ ডু প্লেসির। উপস্থাপক যখন জিজ্ঞেস করেন- বিরাটকে চাইবেন না? ডু প্লেসি তখন বলেন, ‘বিরাট আমার ব্যাটিং তালিকায় আছে।’

শ্রীলঙ্কান অধিনায়ক দিমুথ করুনারত্নে ও নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেইন উইলিয়ামসও স্পষ্ট উত্তর দিয়েছেন। করুনারত্নে ইংলিশ অলরাউন্ডার বেন স্টোকসকে নিজ দলে চাওয়ার কথা জানান। উইলিয়ামসনের পছন্দ রশিদ খান। তার ব্যাখ্যা এবার বিশ্বকাপে বোলারদের ভূমিকা হবে বেশ বড়। আর তাতে রশিদ রাখবেন প্রভাব।

অনুষ্ঠানে মাশরাফি বলেন, ‘আয়ারল্যান্ডে শেষ সিরিজে আমরা অনেক ভালো খেলেছি। আমরা আশা করি, দুই তারিখে ডু প্লেসিদের বিপক্ষে ভালো খেলব। আশা করি, আমরা ভালো শুরু করবো।’

তখন একই মঞ্চে মাশরাফির বাঁ পাশেই বসা ছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস। মাশরাফির কথার উত্তরে মজা করে ডু প্লেসিস বলেন, ‘এমনটি আমি আশা করি না।’ তখনই পুরো অনুষ্ঠানে হাসির রোল পড়ে।

আগামী ২ জুন দ্য ওভালে শক্তিশালী দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে বাংলাদেশ।

অনুষ্ঠানে মাশরাফি বলেন, ‘সবকিছুই নির্ভর করবে শুরুটার ওপর। ভালো করতে চাইলে শুরুটা গুরুত্বপূর্ণ। তবে ক্রিকেট এমন একটি খেলা, নিজেদের দিনে যে কেউ যে কাউকেই হারাতে পারে। আমরা আত্মবিশ্বাসী, আমরা যেকোনও দলকেই হারাতে পারবো। কিন্তু কেমন শুরু করছি তার ওপর অনেককিছুই ডিপেন্ড করবে।’

বিশ্বকাপে নিজের দল নিয়ে ম্যাশ বলেন, ‘আমাদের দলে সিনিয়র ও জুনিয়রদের দারুণ একটি সমন্বয় আছে। প্রত্যেকেই ফর্মে আছে। এখন মূল মঞ্চে সেটি প্রমাণ করতে পারলেই হলো।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here