ম্যাচ জেতানো বা বিপর্যয় এড়ানো বেশ কয়েকটি টি–টোয়েন্টি ইনিংস আছে সাব্বির রহমানের, কিন্তু ওয়ানডেতে আসলে পরিচিত রুপে সাব্বির রহমানকে পাওয়া গেছে খুব কম। ক্রিকেট মাঠের পারফর্মেন্স নিয়ে যতটা না আলোচনায় থাকেন সাব্বির তারচেয়ে বেশি মাঠের বাহিরের সংবাদ দিয়ে আলোচনায় থাকেন ডান হাতি এই হার্ড হিটার। বর্তমান বাংলাদেশ দলে সাব্বিরের চরিত্রটা আসা-যাওয়ার মধ্যেই কাটে। অভিজ্ঞতা দিয়েই রাঙাতে চান এই বিশ্বকাপ। সাব্বির ব্যাট হাতে বাইশ গজে নামার আগে ভাবেন, ‘এটা আমার শেষ ম্যাচ, এখান থেকেই ভালো করতে হবে। এখানেই চ্যালেঞ্জ জয় করতে হবে।’

২০১৫ বিশ্বকাপে খেলা সাব্বির এবার ইংল্যান্ডে খেলবেন নিজের দ্বিতীয় বিশ্বকাপ। সাব্বির নিজেও মানছেন এবার তার কিছু করে দেখাতে হবে। ত্রিদেশীয় সিরিজে সাব্বির ব্যাট করার সুযোগই পাননি। যেই এক ম্যাচে নিজেকে প্রমাণ করতে পারতেন সেই ম্যাচেই আম্পায়ারের ভুল সিদ্ধান্তে সাব্বিরকে ফিরতে হয় প্যাভিলিয়নে।

কার্ডিফে পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচটি হয়েছে পন্ড। ব্যাটিং অনুশীলন করতে না পারায় হতাশায় পুড়ছেন সাব্বির। ভারতের বিপক্ষে দ্বিতীয় প্রস্তুতি ম্যাচে খেলতে মুখিয়ে সাব্বির রহমান,‘ত্রিদেশীয় সিরিজে ব্যাটিং করতে পারিনি। টপ অর্ডার ভালো খেলেছে। একটা সুযোগ পেয়েছি, সেটা কাজে লাগাতে পারিনি। এই প্রস্তুতি ম্যাচটি আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ছিল। পরের ম্যাচটাও গুরুত্বপূর্ণ। খেলতে পারিনি, তাই একটু হতাশ। দল খুব ভালো অবস্থায় আছে, আমিও আশা করি ভালো অবস্থায় আছি। অনুশীলন করছি, আবহাওয়া ভালো আছে। যে উইকেটে খেলা হবে তেমন উইকেটে অনুশীলন করেছি। দেখি দ্বিতীয় প্রস্তুতি ম্যাচে কেমন হয়।’

প্রতিটি ম্যাচই সাব্বিরের কাছে শেষ সুযোগ। এমনটা ভেবেই প্রত্যেক ম্যাচে ব্যাট করতে নামেন সাব্বির,‘সব সময় মনে করি এটা আমার শেষ ম্যাচ। এখান থেকে কিছু অর্জন করেই পরের ম্যাচে আমাকে জায়গা করে নিতে হবে। এর পর পরের ম্যাচ। মনে করি এটা শেষ ম্যাচ, এখান থেকেই ভালো করতে হবে। এখানেই চ্যালেঞ্জ জয় করতে হবে।’

অনেকটা নাটকীয়ভাবে জাতীয় দলে ফিরেছিলেন সাব্বির রহমান। আলোচনা-সমালোচনাও হয়েছে অনেক। তবুও তাঁর উপর আস্থা রেখেছিলেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। ফেরার মঞ্চে সেঞ্চুরি দিয়ে মূল্য দিয়েছেন সেই আস্থার। তাতে দরজা খুলেছে বিশ্বকাপের। নিউজিল্যান্ডে যেয়ে সাব্বির পেয়েছেন আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের প্রথম শতক। নিউজিল্যান্ডের সেঞ্চুরিই সাব্বিরকে অনুপ্রেরণা দেয়, ‘নিউজিল্যান্ডের সেঞ্চুরি অবশ্যই আমাকে অনুপ্রেরণা দেয়। দেশের বাইরের সব ভালো ইনিংসের ভিডিও দেখি। নিউজিল্যান্ডের ওই ইনিংস অনেক অনুপ্রেরণা দেয়, আত্মবিশ্বাস বাড়ায়। চেষ্টা করব ওটা ধরে রাখার।’

দলের প্রয়োজনে প্রায় হারিয়ে যেতে বসা অলরাউন্ডার সত্তাকেও জাগিয়ে তুলতে চাইছেন সাব্বির। বল হাতেও দলে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে চান লেগ স্পিনার সাব্বির, ‘এ কন্ডিশনে স্পিন বোলিং কঠিন, কারণ খুব বেশি টার্ন নেই। শুধু আমাদের নয়, সব দলের স্পিনারের জন্যই কঠিন কন্ডিশন। ব্যাটসম্যানকে আটকে রাখার জন্য যা করা দরকার আমি সেটাই করার চেষ্টা করব। যত কম রান দেওয়া যায়।’

ব্যাটিংয়ে সাব্বির মোটেও রক্ষণাত্মক নয় বরং পুরোদম্ভর আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করেই তিনি জাতীয় দলের হয়ে নিয়মিত ক্রিকেট খেলেছেন। আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করলেও সাব্বিরের ক্যারিয়ার কিন্তু ততটা সমৃদ্ধ হতে পারেনি। তার পারফর্মেন্স গ্রাফটাও ছিল নিম্নমুখী।

সাব্বির রহমান তার ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত ৬১টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন। যেখানে তার গড় ২৫.৯৩। এছাড়া টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটেও ৪১ ম্যাচে তার গড় ২৫.৮৮। ১২২.৫৯ স্ট্রাইক রেটে ব্যাট করেছেন তিনি। ওয়ানডে ক্রিকেটে তার স্ট্রাইক রেট ৯১.৫১। ওয়ানডেতে ৬১ ম্যাচে ৫টি হাফ সেঞ্চুরি এবং ১টি সেঞ্চুরি হাকিঁয়েছেন তিনি।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here