আজ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে যাচ্ছেন না মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বুধবার দুপুর ২টা ১৮ মিনিটে টুইট করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই জানিয়েছেন এ কথা। এই টুইটে প্রধানমন্ত্রীর শপথ গ্রহণের মতো একটি অনুষ্ঠানকে একটি দল রাজনৈতিক লাভ তোলার হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করতে চাইছে বলে অভিযোগ করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী।

ধারণা করা হচ্ছে বাংলায় ‘খুন হওয়া’ ৫৪ জন বিজেপি কর্মীর পরিবারকে মোদীর শপথ অনুষ্ঠানে হাজির করানোর যে পরিকল্পনা বিজেপি করেছে, তার জেরেই দিল্লি যাওয়ার সিদ্ধান্ত মমতা বাতিল করলেন। টুইটেও বোঝা গেছে সেটাই।

পঞ্চায়েত ভোটের আগে থেকে শুরু করে লোকসভা নির্বাচন শেষ হওয়া পর্যন্ত বাংলায় ৫০-এর বেশি বিজেপি কর্মী ও সমর্থককে খুন হতে হয়েছে বলে বিজেপির দাবি। রাজনৈতিক কর্মসূচিতে যোগ দিতে গিয়ে মৃত্যুর ঘটনাও রয়েছে। এঁদের সকলকেই শহিদ আখ্যা দিয়েছে বিজেপি। এদের পরিবারকে দিল্লিতে নরেন্দ্র মোদীর শপথ গ্রহণে নিয়ে যাচ্ছে বিজেপি। মোট ৭০ জনকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

বিজেপির এই সিদ্ধান্তেই ক্ষুব্ধ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ৫৪ জন বিজেপি কর্মী বাংলায় খুন হয়েছেন বলে যে দাবি বিজেপি করছে, তা সর্বৈব মিথ্যা বলে নিজের টুইটে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দাবি করেছেন। তিনি টুইটারে লিখেছেন, ‘‘বাংলায় কোনও রাজনৈতিক খুন হয়নি। ব্যক্তিগত শত্রুতা, পারিবারিক কলহ বা অন্য কোনও বিবাদের কারণে এই সব মৃত্যু ঘটে থাকতে পারে, রাজনীতির সঙ্গে এ সবের কোনও সম্পর্ক নেই। আমাদের কাছে সে রকম কোনও রেকর্ড নেই। সুতরাং, আমি দুঃখিত, নরেন্দ্র মোদীজি, এটা আমাকে বাধ্য করল অনুষ্ঠানে না যেতে।’’

টুইটের শেষ অংশে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লিখেছেন, গণতন্ত্রের উদযাপনে পালিত এই অনুষ্ঠানের একটা সম্ভ্রম রয়েছে। একটি দল এই অনুষ্ঠানকে ব্যবহার করছে রাজনৈতিক পয়েন্ট তোলার কাজে। দয়া করে আমাকে মাফ করবেন।’’

এর আগে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর শপথ গ্রহণে যাবেন। ‘গণতান্ত্রিক আনুষ্ঠানিকতা’ এবং ‘সাংবিধানিক সৌজন্য’ রক্ষার্থেই তিনি প্রধানমন্ত্রীর শপথ অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন বলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here