বিশ্বকাপের দ্বিতীয় দিনই মাঠে গড়াতে যাচ্ছে এবারের বিশ্বকাপের অন্যতম কাঙ্ক্ষিত ম্যাচ। তাতে মুখোমুখি সময়ের দুই আনপ্রেডিক্টেবল দল পাকিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দল দুটি কখন কী করে বসে তা অনুমান করা সাধ্য কার!

নটিংহ্যামের ট্রেন্ট ব্রিজে বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে দিনটায় মাঠে নামবে দল দুটি।

সাম্প্রতিক সময়টা মোটেও ভালো যাচ্ছে না পাকিস্তানের। ২০১৮ সালেরে শুরু থেকেই হেরে চলছে দলটি। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হারতে হয় তাদের। হোয়াইটওয়াশ হতে হয় সংযুক্ত আরব আমিরাতে অস্ট্রেলিয়ার কাছে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে। মাঝে এশিয়া কাপ থেকে ফিরতে হয়েছে খালি হাতে। বিশ্বকাপ শুরুর ঠিক আগে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের কাছে পাঁচ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে ৪-০ ব্যবধানে হেরেছে পাকিস্তান। একটি ম্যাচ ভেসে গেছে বৃষ্টিতে।

বিশ্বকাপের আহে সব মিলিয়ে টানা ১০টি ওয়ানডে ম্যাচে হেরেছে পাকিস্তান। এমনকি আফগানিস্তানের কাছে প্রস্তুতি ম্যাচও হেরেছে তারা। তবে এসব নিয়ে কোন ভাবনা নেই পাকিস্তানের। বিশ্বকাপে এসে পেছনে তাকাতে চান না দলটির অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ।

“হ্যাঁ, আমরা টানা ১০টি ম্যাচ হেরেছি। কিন্তু আমরা এসব ভুলে গিয়েছি এবং বিশ্বকাপ শুরু করতে যাচ্ছি।”

প্রথম ম্যাচটা ট্রেন্ট ব্রিজে খেলবে পাকিস্তান। এখানকার ফ্ল্যাট উইকেট দুশ্চিন্তার বিষয়। ছোট বাউন্ডারি। আগে ব্যাট করলে বড় লক্ষ্য ছুড়তে হবে, আর পরে ব্যাট করলে বড় লক্ষ্য তাড়ার সক্ষমতা থাকতে হবে ব্যাটসম্যানদের।

এ ব্যাপারে পাকিস্তান অধিনায়ক বলেন, “যখন এখানে আমরা প্রথম দিন এসেছিলাম তখন আমরা গ্রাউন্ডসম্যানকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন এখানকার গড় রান কতো? তিনি বলেছিলেন ৪৮০।”

“ক্রিকেটে চ্যালেঞ্জ থাকেই। সবাই ভাবে এখন গড়ে ৩০০ এর বেশি রান হবে কিন্তু এটাও চ্যালেঞ্জিং। বিশ্বকাপে আমাদের বিভিন্ন উইকেটে খেলা আছে। তাই কেউ যদি ৩০০ এর বেশি রান করে অন্য দল এটা চেজ করতে যাবেই।”

ক্রিকেটে আনপ্রেডিক্টেবল বলেই খ্যাতি পাকিস্তানের। একই তকমা ক্যারিবিয়ানদেরও। শুরুতেই দুই আনপ্রেডিক্টেবলের লড়াই। এতে খারাপের কিছু দেখছেন না সরফরাজ।

“আনপ্রেডিক্টেবল তকমাটা ভালোই কারণ এতে সব দলই আপনাকে ভয় করবে। আমরা আনপ্রেডিক্টেবল, আমরা এটা মেনে নিচ্ছি, যেমনটা উইন্ডিজ মেনে নিয়েছে।”

গত মঙ্গলবারই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৪২১ রানের বিশাল পাহাড় দাঁড় করেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দলটির ক্রিস গেইল, এভিন লুইস, শাই হোপ ও আন্দ্রে রাসেলের মতো বিধ্বংসী ব্যাটসম্যান চাপে ফেলতে পারে পাকিস্তানকে। এই নিয়ে সরফরাজের মন্তব্য-“যদি আপনি কোনো দলকে হারাতে চান তাহলে আপনাকে উইকেট নিতে হবে, যেখানেই আপনি খেলেন না কেন। তাই উইকেট নেওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ।”

এদিকে বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশের কাছে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল হারলেও সেটা ওয়েস্ট ইন্ডিজের পূর্ণশক্তির দল ছিল না। প্রস্তুতি ম্যাচে একপ্রকার দাপট দেখিয়ে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জয় তুলে নেয় তারা। দলের প্রায় সব ব্যাটসম্যানই আছেন দুর্দান্ত ফর্মে।

দীর্ঘ দিন পর ক্যারিবীয় জার্সিতে ফিরেছেন ক্রিস গেইল। ফেরার আগেই জানিয়ে ছিলেন বিশ্বকাপের নিজের অবসরের কথা। তারপরই যেন আগের আরো ভয়ঙ্কর হয়ে উঠলেন এই ক্যারিবিয়ান দানব। জাতীয় দলের গত পাঁচ ম্যাচে করেন ৪২৪ রান। তারপর আইপিএল কাটিয়েছেন দুর্দান্ত ফর্মে।

গেইলের পাশাপাশি দুর্দান্ত ফর্মে আছেন আরেক ওপেনার শাই হোপও। শেষ দশ ম্যাচে ৫৮৫ রান করেছেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। সেই সঙ্গে ফর্মে থাকা রাসেলকে দলে যোগ করায় আরো শক্তিশালী হয়েছে উইন্ডিজ। কিন্তু বর্তমান ক্যারিবীয় দলটির বড় দুর্বলতা বোলিং লাইনআপ। তবে বিশ্বকাপে সে দুর্বলতাই কাটানোর লক্ষ্য থাকবে তাদের।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here