ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব মহাসড়কে প্রায় ৪৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে গাড়ির দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। আবার কিছু কিছু এলাকায় নতুন যানজট তৈরি হয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন মহাসড়ক দিয়ে চলাচলকারী যাত্রী ও চালকেরা।

অন্যদিকে সোমবার সকাল ৬টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৬টা পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু সেতু দিয়ে ৩৫ হাজার ২৭১টি গাড়ি পার হয়েছে। এতে সেতুর টোল আদায় হয়েছে ২ কোটি ৪৪ হাজার ৯৬০ টাকা।

তবে সকাল সাড়ে আটটা থেকে সেতুতে টোল আদায় সাময়িক বন্ধ রয়েছে। কারণ হিসেবে সেতু সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছে সিরাজগঞ্জের অংশে যানজটের কারণে সেতুতে টোল আদায় বন্ধ রয়েছে। সেতুর পশ্চিমপাড় স্বাভাবিক হওয়ার পর পুনরায় টোল আদায় শুরু হবে।

মঙ্গলবার ভোর রাত থেকে সকাল পৌনে ১০টা পর্যন্ত মহাসড়কের বঙ্গবন্ধু সেতুপুর্ব থেকে মির্জাপুর উপজেলার পাকুল্লা পর্যন্ত গাড়ির দীর্ঘ সারি দেখা গেছে।

এছাড়া সড়কে বিভিন্ন এলাকায় মানুষ পরিবহনের অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে রয়েছে। মহাসড়কের বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব, এলেঙ্গা বাসস্ট্যান্ড, রাবনা বাইপাস, বাঐখোলা, করটিয়া হাটবাইপাস, নাটিয়াপাড়া ও পাকুল্লায় যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

একাধিক চালকরা জানান, ভোর থেকেই এ মহাসড়কে যানবাহনের ধীরগতি ছিল। তবে সকাল ৭টা থেকে এ সড়কের পাকুল্লা থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত প্রায় ৩০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। সড়কে এখনও চার লেনের কাজ চলমান থাকাসহ গতকালের বৃষ্টিতে সড়কের বিভিন্ন স্থানে খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। এ কারণে গাড়ির গতি কমিয়ে গাড়ি চালাতে হয়।

এছাড়াও সোমবার পোশাক শ্রমিকদের ছুটি হওয়ার পর বিকেল থেকে এ সড়কে যানবাহন বৃদ্ধি পেয়েছে কয়েকগুণ। এ কারণে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে বলেও জানান তারা।

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোশারফ হোসেন জানান, গাড়ির অতিরিক্ত চাপ থাকায় থেমে থেমে বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্ব পার থেকে প্রায় ৪৫ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। সিরাজগঞ্জ থেকে গাড়ি টানতে না পাড়ায় এ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here