দারুণভাবে বিশ্বকাপে ঘুরে দাঁড়াল পাকিস্তান। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে নিজেদের প্রথম ম্যাচে হতাশার হারের পর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে জয় তুলে নিল দলটি। সেই ইংল্যান্ড, যাদের এবারের বিশ্বকাপে ট্রফির বড় দাবিদার ভাবা হচ্ছে। যে দলটা দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দারুণ জয়ে আসর শুরু করেছিল।

সোমবার ইংল্যান্ডকে ১৪ রানে হারিয়েছে পাকিস্তান। উইন্ডিজের বিপক্ষে হারের পর পাকিস্তান অধিনায়কের ফিটনেসের তীব্র সমালোচনা করেছিলেন শোয়েব আখতার। বলেছিলেন, “সরফরাজ যখন টস করতে এল তখন তার পেটটা ছিল খুবই লক্ষণীয়। তার মুখমণ্ডল খুবই মোটা দেখাচ্ছিল। তার মতো এত আনফিট এই প্রথম দেখলাম আমি।’’ সেই ‘মোটা’ সরফরাজই জয় কল ইংল্যান্ড।

এদিন টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে দুই ওপেনার ফখর জামান ও ইমাম-উল-হক দারুণ সূচনা এনে দেন দলকে। ওপেনিং জুটিতেই আসে ৮২ রান। জুটি ভাঙার পর অবশ্য খুব বেশিক্ষণ টিকে থাকতে পারেননি আরেক ওপেনারও। তার কারণ অবশ্য ক্রিস ওকসের দুর্দান্ত এক ক্যাচ। এরপর ব্যাটিংয়ে নামেন অভিজ্ঞ মোহাম্মদ হাফিজ। জুটি বাঁধেন বাবর আজমের সঙ্গে। তৃতীয় উইকেটে ৮৮ রান যোগ করেন এ দুই ব্যাটসম্যান।

দলের সেরা ব্যাটসম্যান বাবর আজমও ভালো ইঙ্গিত দিচ্ছিলেন। ব্যক্তিগত ১ রানে জীবন পেয়েছিলেন। ওকসের আরও একটি দারুণ ক্যাচে ফিরেছেন তিনি। তবে এর আগে দলের জন্য কার্যকরী ৬৩ রানের ইনিংস খেলেছেন। ৬৬ বলের ইনিংসটি ৪টি চার ও ১টি ছক্কায় সাজিয়েছেন এ ব্যাটসম্যান।

উইকেটে নেমে প্রথম বলেই ডাউন দ্য উইকেট খেলে চার মেরে শুরু করা হাফিজ ব্যক্তিগত ১৪ রানে জেসন রয়ের হাতে পান সহজ জীবন। সে জীবন দারুণভাবে কাজে লাগিয়ে করেছেন দলের সর্বোচ্চ স্কোর। ওকসের আরও একটি দারুণ ক্যাচের বলী হবার আগে খেলেছেন ৮৪ রানের ইনিংস। ৬২ বলে ৮টি চার ও ২টি ছক্কায় সাজান নিজের ইনিংস।

দারুণ ব্যাট করেছেন অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদও। ৪৪ বলে করেন ৫৫ রান। এছাড়া ইমাম ৪৪ ও ফখর ৩৬ রান করেন। ফলে ৩৪৮ রানের বড় সংগ্রহই পায় দলটি। ইংল্যান্ডের পক্ষে ৩টি করে উইকেট নিয়েছেন মইন আলি ও ক্রিস ওকস। এছাড়া ২টি উইকেট নেন মার্ক উড।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

পাকিস্তান: ৫০ ওভারে ৩৪৮/৮ (ইমাম ৪৪, ফখর ৩৬, বাবর ৬৩, হাফিজ ৮৪, সরফরাজ ৫৫, আসিফ ১৪, মালিক ৮, ওয়াহাব ৪, হাসান ১০*, শাদাব ১০*; ওকস ৩/৭১, আর্চার ০/৭৯, মইন ৩/৫০, উড ২/৫৩, স্টোকস ০/৪৩, রশিদ ০/৪৩)।

ইংল্যান্ড: ৫০ ওভারে ৩৩৪/৯ (শাদাব ২/৬৩, আমির ২/৬৭, ওয়াহাব ৩/৮২, হাসান ০/৬৬, হাফিজ ১/৪৩, মালিক ১/১০)।

ফলাফল: পাকিস্তান ১৪ রানে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: মোহাম্মদ হাফিজ (পাকিস্তান)।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here