চীন, ম্যাকাউ এবং তাইওয়ানে বহিঃসমর্পণের সুযোগ রেখে প্রস্তাব করা একটি বিতর্কিত আইনের বিরুদ্ধে হংকংয়ে ১০ লাখের বেশি মানুষ রাস্তায় নেমেছেন।

১৯৯৭ সালে চীনের অধীনে আসার পর এটাই হংকংয়ের সবচেয়ে বড় আন্দোলন। সেই থেকে হংকংকে সামলাতে চীন ‘এক দেশ দুই ব্যবস্থা’ পদ্ধতি চালু রেখেছে।

চীনের বিতর্কিত এই আইন পাস হলে ফৌজদারি অপরাধে অভিযুক্ত বাসিন্দাদের অন্য কোথাও বহিঃসমর্পণে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেয়ার এখতিয়ার রাখবে হংকংয়ের আদালত।

সমালোচকেরা বলছেন, একে কাজে লাগিয়ে চীন হংকংয়ের রাজনৈতিক বিরোধীদের বিপদে ফেলতে পারে।

শহরটির চীনপন্থী শাসকেরা বিরোধীদের আশঙ্কাকে অস্বীকার করছেন। ধর্মীয় বা রাজনৈতিক কারণে কোনো বাসিন্দাকে অন্য কোনো দেশের হাতে তুলে দেওয়া হবে না বলে দাবি তাদের। ফৌজদারি অপরাধে অভিযুক্তদের তুলে দেওয়ার ক্ষেত্রে অনেক নীতিমালা মানা হবে বলে আশ্বস্ত করছেন তারা।

ছুটিতে তাইওয়ান গিয়ে গর্ভবতী বান্ধবীকে খুন করে বাড়ি ফিরে আসা এক বাসিন্দাকে তাইপের কাছে হস্তান্তরের লক্ষ্যে হংকংয়ের চীনপন্থী শাসকেরা এ সংশোধনী বিল প্রস্তাব করেন।

সিএনএন জানিয়েছে, রোববার সন্ধ্যায় আন্দোলনকারীরা হংকংয়ের কেন্দ্রীয় অঞ্চল ভিক্টোরিয়া পার্কে জড়ো হন। ‘হংকং পিছু হটো না!’ বলে অনেককে স্লোগান দিতে দেখা যায়।

পুলিশ টুইটারে জানিয়েছে, এখন পর্যন্ত সাতজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here