সময় বদলেছে! কিন্তু, কতটা? সেই উত্তরই দিলেই গুগল সিইও সুন্দর পিচাই৷ কিছুদিন যাবদ যৌন হেনস্থার জেরে বার বার সংবাদ মাধ্যমে নাম উঠে এসেছে গুগলের৷ এখনও পর্যন্ত সেই রেশ কাটেনি৷ সেই সূত্র ধরেই বদলে ফেলা হচ্ছে সংস্থার পুরনো নিয়মকানুনগুলিকে৷ অন্যদিকে, কর্মক্ষেত্রে মহিলা কর্মীরা নাকি উপযুক্ত সন্মান পান না৷ এমনই একাধিক অভিযোগ নিয়ে আসা হয় গুগলের বিরুদ্ধে৷ আর, সেই প্রসঙ্গেই সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হন গুগল সিইও৷

শুধুমাত্র কথাই নয়৷ নিজের জীবনের বেশ কিছু অজানা ছবি সামনে আনেন৷ পিচাই জানান, ‘আগে জীবন অনেক বেশি সহজ ছিল৷ যেটা আজকের তুলনায় অনেকটাই ভাল৷ আমরা একটা ছোট ঘরে থাকতাম৷ যেটাকে অনেকের সঙ্গে শেয়ার করতে হত৷ লিভিং রুমের মেঝেতে ঘুমোতাম৷ টানাপোড়েনের মধ্যে দিয়েই বড় হয়েছি৷ এখনও পর্যন্ত আমি একটা জলের বোতল পাশে নিয়ে ঘুমোই৷ অন্যান্য বাড়িগুলিতে ফ্রিজ ছিল৷ অনেক পরে আমাদের বাড়িতে ফ্রিজ আসে৷ যেটা একটি বড় বিষয় ছিল৷’

গুগল সিইওর ছোটবেলাটা কেটেছে একটু অন্যভাবে৷ হাতে সময় থাকত যথেষ্ট৷ তাই সামনে যা আসত তাই পড়তেন তিনি৷ আর, এভাবেই খুব ছোট বয়সে ডিকেন্স শেষ করেন৷ পড়াশুনা আইআইটি খরগপুরে৷ বাকি পড়াশুনা বিদেশে৷ সেখানেই তিনি মেটারিয়াল সায়েন্স এবং ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের উপর পড়াশুনা করেন৷ শুধু তাই নয়, এমবিএ ডিগ্রীও অর্জন করেন৷

এরপর, কর্মজীবন শুরু হয় গুগলের হাতে ধরে ২০০৪ সালে৷ গুগল ক্রোম নির্মাতাদের দলের একটি অংশও ছিলেন বর্তমানে গুগল সিইও৷ আর এভাবেই কেটে যায় সময়৷ দশ বছর পর আমুল পরিবর্তন আসে তাঁর কেরিয়ারে৷ তবে, যাত্রাপথ খুব একটা সহজ ছিল না৷ ২০১৫ সালে গুগলের সিইও হন পিচাই৷ কিন্তু, সময়ের সঙ্গে গভীর হয় কথোপকথোনের প্রসঙ্গ৷ উঠে আসে কর্মীদের যৌন হেনস্থার বিষয়টিও৷ যার জেরে সারা বিশ্বের মোট ২০,০০০ কর্মী মিলিতভাবে প্রতিবাদ জানিয়েছে৷

সেই প্রসঙ্গেই সিইও বলেন, ‘সংস্থাকে আরও উন্নত করা সম্ভব, এই দাবিটিকে প্রতিষ্ঠিত করতেই কর্মীরা ওয়াক-আউট করেছেন৷ সেজন্য আমরা তাঁদের কাছে বিশেষভাবে কৃতজ্ঞ৷ ঠিক কোথায় ভুল হয়েছে সেটিকে খুঁজে বের করার চেষ্টা করছি৷’ তবে, কর্মক্ষেত্রে যৌন হেনস্থার মত বিষয়গুলিকে গুরুত্ব দিতে নয়া নিয়ম এনেছে গুগল৷

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here